বৃহস্পতিবার শুরু হচ্ছে নিদাহাস ট্রফির প্রস্তুতি

ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:৫৬ পিএম, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ঘরের মাঠে দুঃস্বপ্নের সিরিজ শেষ হলো মাত্র দুইদিন আগে। ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল, টেস্ট এবং টি-টোয়েন্টি সিরিজে চরম ভরাডুবি ঘটেছে বাংলাদেশ দলের। মানসিকভাবেই বলতে গেলে ভেঙে পড়েছে পুরো টিম বাংলাদেশ। এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ দলকে আবারও খেলতে নামতে হবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। এমনকি সেটা শ্রীলঙ্কার মাটিতে গিয়ে। শুধু তাই নয়, শ্রীলঙ্কার সঙ্গে এবার প্রতিপক্ষ হিসেবে যোগ হচ্ছে বিশ্বসেরা দল ভারত। বিরাট কোহলির নেতৃত্বে যারা ইতোমধ্যে রয়েছে ফর্মের চূড়ায়।

৬ মার্চ শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোয় শুরু হবে নিদাহাস ট্রফির খেলা। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের এই টুর্নামেন্টে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা ছাড়াও খেলবে বাংলাদেশ এবং ভারত। ওই টুর্নামেন্টের জন্য কবে থেকে ক্যাম্প শুরু হবে- এটা নিয়ে ছিল একটা প্রশ্ন। বিশেষ করে এমন কঠিন পরিস্থিতিতে কীভাবে ক্যাম্প পরিচালনা হবে সেটাও প্রশ্ন ছিল সবার কাছে।

অবশেষে আজ বোর্ডে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছেন, ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হবে নিদাহাস কাপের জন্য ক্রিকেটারদের প্রস্তুতি ক্যাম্প।

তবে পাপন জানিয়েছেন, স্বাভাবিকভাবে প্রস্তুতি শুরু হওয়ার কথা ছিল ২৪ কিংবা ২৮ তারিখ। কিন্তু দলের যে অবস্থা, তাতে ক্যাম্পের তারিখ এগিয়ে আনা হয়েছে। তিনি আরও জানিয়েছেন, এখন থেকে অনেক বেশি কঠোর হবে বোর্ড।

পাপন বলেন, ‘স্বাভাবিকভাবে আমাদের ক্যাম্প শুরু হওয়ার কথা ছিল ২৪ বা ২৮ তারিখ থেকে। তিনদিন বা চারদিনের ক্যাম্প। আমার কাছে মনে হচ্ছে সময়টা খুবই অল্প। কারণ আমরা শ্রীলঙ্কার মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খেলতে যাচ্ছি। আমরা এখানে যেটা খেলেছি তার থেকেও ওখানে কঠিন হওয়ার কথা। ভারতের বিপক্ষে খেলা। ওরা দারুণ ফর্মে আছে। এরকম শক্তিশালী দলের বিপক্ষে খেলা তাই এতো গা-ছাড়া ভাব থাকা যাবে না। আমাদের ঘুরে দাড়াতে হবে।’

কোর্টনি ওয়ালশকে দায়িত্ব দিয়েছেন পেসারদের নিয়ে বিশেষ ক্যাম্প করার জন্য। পাপন বলেন, ‘কোর্টনি ওয়ালশকে বলে দিয়েছি ১৪ জনের পেসারকে নিয়ে পরশু থেকেই ক্যাম্প ডাকতে। প্রিমিয়ার ডিভিশনে যারা খেলছে তাদেরকেও। কয়েকজন ব্যাটস্যম্যান যাদের কাছ থেকে আমরা চাচ্ছি তাদের পারফরম্যান্সে উন্নতি করা যেতে পারে। এই ১৯ জনকে নিয়ে পরশু থেকেই ক্যাম্প চালু করছে। একাডেমিতে। যেদিন যেই খেলোয়াড়ের খেলা (প্রিমিয়ার ক্রিকেটে) থাকবে সেদিন ওই খেলোয়াড়কে ছেড়ে দেবে। সেদিন সে খেলতে পারবে। ক্লাবের কোনো অসুবিধা হচ্ছে না। আমাদের এটা গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের ফাস্ট বোলিং হতাশাজনক ছিল এ সিরিজে। সঙ্গে ব্যাটিংও আনকমফোরটেবল মনে হয়েছে। মনে হয়নি কেউ স্বাচ্ছন্দ্যে খেলেছে। টি-টোয়েন্টিতে বিশেষ করে। এ কারণে আজকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, ২২ তারিখ থেকে ক্যাম্প চালু হচ্ছে।’

আইএইচএস/বিএ