ঢাকা টেস্টের তিনজন থাকছেন না চট্টগ্রামে

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১০:৫৬ এএম, ১৬ নভেম্বর ২০১৮

মিরপুরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের শেষদিনই চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টের দল। তা অনুমোদনের জন্য পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি নাজমুল হোসেন পাপনের কাছেও।

কিন্তু জিম্বাবুয়েকে মিরপুর টেস্টে হারানোর পরিতৃপ্তি বা দায়মুক্তির প্রশান্তির কারণে বৃহস্পতিবার সংবাদ মাধ্যমের সাথে কথা বললেও, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টের স্কোয়াডে চোখ বোলানো হয়নি বিসিবি সভাপতির। যে কারণে বৃহস্পতিবারই দল ঘোষণা করতে পারেননি বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের নির্বাচকরা।

তবে বিসিবি সভাপতির অনুমোদন নিয়ে শুক্রবার যেকোনো সময়েই ঘোষণা দেয়া হবে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টের দল। জাগোনিউজের সাথে আলাপে এ তথ্য জানিয়েছেন ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু।

স্কোয়াডে কে বা কারা আছে, ঢাকা টেস্ট থেকে কেউ বাদ পড়ছে কি-না। জাতীয় লিগে পারফর্ম করা কেউ দলে আসবে কি-না? এসব প্রশ্নের সরাসরি উত্তর দিতে রাজি হননি নান্নু। তবে জানিয়েছেন সবশেষ ঢাকা টেস্ট থেকে অন্তত তিনজন বাদ পড়বেন চট্টগ্রামে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে।

আচ্ছা সে তিনজনই বা কারা? এ প্রশ্নেরও সরাসরি উত্তর পাওয়া যায়নি। তবে তিনি জানিয়েছেন একজন ব্যাটসম্যান, একজন পেসার এবং একজন স্পিনারকে পরিবর্তন করা হবে চট্টগ্রাম টেস্টে।

তার কথার সুত্র ধরেই বোঝা যায় স্পিনার হিসেবে বাদ পড়তে যাচ্ছেন বাঁহাতি অর্থোডক্স নাজমুল ইসলাম অপু। সিলেটে অভিষেক টেস্ট খুব বেশি কিছু করতে পারেননি অপু। যে কারণে ঢাকা টেস্টেই একাদশ থেকে বাদ পড়ে গিয়েছিলেন তিনি। এবার স্কোয়াড থেকে তাকে বাদ দেয়া হলেও অবাক হওয়ার কিছুই থাকবে না। অনুমান করা হচ্ছে অপুর বদলে সুযোগ পাবেন ডানহাতি অফস্পিনার নাঈম হাসান। সবশেষ জাতীয় ক্রিকেট লিগে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারী ছিলেন তিনি।

অন্যদিকে ব্যাটসম্যান হিসেবে বাদ পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে বাঁহাতি টপঅর্ডার নাজমুল হোসেন শান্তর। কেননা ওয়ানডে সিরিজে ব্যর্থতার পরিচয় দেয়া শান্ত, কিছু করতে পারেননি জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টে। যে কারণে তাকে বাদ দেয়া হয় ঢাকা টেস্ট থেকে। সুযোগ পেয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ফিফটি করে নিজেদের সামর্থ্যের প্রমাণ দেন মোহাম্মদ মিঠুন। তাই মিঠুন যে থেকে যাবেন তা একপ্রকার নিশ্চিতই।

শান্ত বাদ পড়লে তার জায়গায় সুযোগ পাওয়ার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন দুই বাঁহাতি সৌম্য সরকার কিংবা সাদমান ইসলাম অনিক। সবশেষ জাতীয় ক্রিকেট লিগে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক সাদমানের ব্যাপারে আগেও ইতিবাচক কথা বলেছিলেন প্রধান নির্বাচক। চট্টগ্রাম টেস্টে তাকে নিয়েও নেয়া হতে পারে। তবে মিডিয়াম পেস বোলিংয়ের কারণে সাদমানের চেয়ে এগিয়ে থাকবেন সৌম্য। কার্যকরী বোলিং ছাড়াও সাম্প্রতিক সময়ে ব্যাট হাতেও রানে ফিরেছেন ড্যাশিং এ টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান।

অপু ও শান্ত বাদ গেলে বাকি থাকে কেবল এক পেসারের জায়গা। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে স্কোয়াডে চার পেসার রাখলেও সিলেট টেস্টে এক ও ঢাকা টেস্টে শুধু দুই পেসার নিয়ে খেলেছে বাংলাদেশ। দুই ম্যাচের একটিতেও সুযোগ পাননি শফিউল ইসলাম। তাকে বাজিয়ে দেখতে রাখা হয়েছে মূল সিরিজ শুরুর আগে দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচের স্কোয়াডে।

এছাড়া প্রস্তুতি ম্যাচে খেলবেন রুবেল হোসেনও। তাদের বোলিংয়ের নিয়ন্ত্রণ এবং ইতিবাচকতা বিবেচনা করেই ঠিক করা হবে কাকে সুযোগ দেয়া হবে স্কোয়াডে। কেননা যেকোন দিনে মোস্তাফিজুর রহমান বাংলাদেশ দলে এখন অটোমেটিক চয়েজ। অভিষেকে উইকেট না পেলেও নিজের সম্ভাবনার জানান দিয়েছেন খালেদ আহমেদও। তাই এ দুজনের স্কোয়াডে থাকা প্রায় নিশ্চিত।

অর্থাৎ জিম্বাবুয়ে সিরিজের স্কোয়াডে থাকা বাকি দুই পেসার আবু জায়েদ রাহী কিংবা শফিউল ইসলামের মধ্যে থেকে যাবেন কেবল একজন। প্রস্তুতি ম্যাচের পারফরম্যান্স বিবেচনায় স্কোয়াডে আসতে পারেন গতিতারকা রুবেল হোসেন।

এদিকে জোর গুঞ্জন চলছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালের অন্তর্ভুক্তির ব্যাপারে। অন্তত প্রথম টেস্টে যে তামিম ইকবাল খেলতে পারবেন না তা বৃহস্পতিবারই জাগোনিউজকে জানিয়েছিলেন প্রধান নির্বাচক। তবে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের জন্য ম্যাচের আগেরদিন পর্যন্ত অপেক্ষা করবে বোর্ড। তার আগেই সাকিব নিজেকে ম্যাচ ফিট হিসেবে প্রমাণ করতে পারলে অপুর বদলে আসবেন সাকিবই, কপাল পুড়বে নাঈমের।

শুক্রবার দল ঘোষণার পরে শনিবার বাংলাদেশ ক্রিকেট দল চলে যাবে বন্দর নগরী চট্টগ্রামে। ২২ নভেম্বর জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে মাঠে গড়াবে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট। তার আগে ১৮ তারিখে এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে বিসিবি একাদশে বিপক্ষে একটি দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে সফরকারীরা।

এসএএস/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :