পাঞ্জাবকে উড়িয়ে আশা বাঁচিয়ে রাখল কলকাতা

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:২৮ এএম, ০৪ মে ২০১৯

চলতি আইপিএলের নিয়মিত খোঁজ না রাখা কাউকে যদি বলা হয়, আন্দ্রে রাসেল-ক্রিস লিনদের কলকাতা নাইট রাইডার্স হেরেছে টানা ছয় ম্যাচ- সে নিশ্চয়ই মারতে তেড়ে আসবে। কেননা দলটি যেসব ম্যাচ জিতেছে সেগুলোতে পাত্তাই দেয় না প্রতিপক্ষকে।

যার সবশেষ উদাহরণ যেন শুক্রবার রাতের ম্যাচটিই। স্যাম কুরান, নিকলাস পুরানদের ব্যাটে চড়ে ১৮৩ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছিল কিংস এলেভেন পাঞ্জাব। কিন্তু ক্রিস লিন ও শুভমান গিলের ব্যাটে চড়ে ২ ওভার হাতে রেখেই সে সংগ্রহ পেরিয়ে গেছে কলকাতা।

তবে এ দুর্দান্ত জয়টি আর এক ম্যাচ আগে হলে বেশি খুশি হতে পারত ওপার বাংলার দলটি। কারণ ১৩ ম্যাচ শেষে তাদের নামের পাশে রয়েছে ১২ পয়েন্ট। যেমনটা রয়েছে সানরাইজার্স হায়দরাবাদেরও। যারা আজ মাঠে নামবে নিজেদের শেষ ম্যাচ খেলতে। সে ম্যাচে হায়দরাবাদ হেরে গেলে তা হাসি ফোটাবে কলকাতার সমর্থকদের মুখে। কারণ প্লে-অফের বাকি থাকা একটি জায়গার জন্য এখন যে লড়ছে মূলত এ দুই দলই।

শুক্রবার রাতে পাঞ্জাবের করা ১৮৩ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতেই ৬২ রান যোগ করেন দুই ওপেনার গিল ও লিন। মাত্র ২২ বলে ৫ চার ও ৩ ছয়ের মারে ৪৬ রান করে আউট হন লিন। তবে একপ্রান্ত আগলে দলের জয় নিশ্চিত করেন গিল।

রবিন উথাপ্পা ১৪ বলে ২২ এবং আন্দ্রে রাসেল ১৪ বলে ২৪ রান করে ফেরেন। তবে অধিনায়ক দীনেশ কার্তিক ৯ বলে ২১ রান করে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান। ম্যাচসেরার পুরষ্কার জেতা শুভমান গিল অপরাজিত থাকেন ৪৯ বলে ৬৫ রান করে।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ২২ রানের মধ্যে দুই ওপেনারকে হারিয়ে বসে পাঞ্জাব। ক্রিস গেইল ১৪টি বল খেলে করেন মাত্র ১৪ রান। লোকেশ রাহুল ফেরেন ২ রানেই। দুই ওপেনারের উইকেটই তুলে নেন সন্দ্বীপ ওয়ারিয়র।

তিন নাম্বারে নেমে মায়াঙ্ক আগারওয়েল ২৬ বলে করেন ৩৬ রান। চারে নিকোলাস পুরান ২৭ বলে ৩ বাউন্ডারি আর ৪ ছক্কায় খেলে দেন ৪৮ রানের ঝড়ো ইনিংস। ১৭ বলে ২৫ আসে মানদ্বীপ সিংয়ের উইলো থেকে।

পরের দায়িত্বটা বলতে গেলে একাই পালন করেছেন স্যাম কুরান। পাঞ্জাব অলরাউন্ডার ২৪ বলে খেলেন ৫৫ রানের ভয়ংকর এক ইনিংস, যে ইনিংসে ৭টি চারের সঙ্গে ছিল ২টি ছক্কার মার।

কলকাতা নাইট রাইডার্সের ওয়ারিয়র ২টি আর একটি করে উইকেট নেন গার্নে, আন্দ্রে রাসেল আর নীতিশ রানা।

এসএএস/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :