আমিরাতি ক্রিকেটারের সামনে ম্লান রাসেল টর্নেডো

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:৩২ পিএম, ১২ আগস্ট ২০১৯

শেষের ১২ বলে প্রয়োজন ছিলো ৩৮ রান, ৭ বল থেকে ১৪ রান করে অপরাজিত ছিলেন বর্তমান সময়ের অন্যতম বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান আন্দ্রে রাসেল। নিজের সুনাম অক্ষুণ্ণ রেখে ৩টি চার ও ৩টি ছক্কার মারে মাত্র ৯ বলেই ৩৫ রান করে ফেলেন রাসেল। শেষের ৩ বলে বাকি ছিলো মাত্র ৩ রান।

কিন্তু এই ৩ রানই নিতে পারেননি রাসেল। শেষ ওভারের চতুর্থ এবং পঞ্চম বলে ডট দিয়ে সমীকরণটি করে ফেলেন ১ বলে ৩ রানে। শেষ বল থেকে করতে পারেন ২ রান। যে কারণে টাই হয়ে যায় ম্যাচ। পরে সুপার ওভারেও নামানো হয় রাসেলকে। কিন্তু সেখানে আর চলেনি রাসেল রাজত্ব। যে কারণে গ্লোবাল টি-টোয়েন্টি কানাডায় চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি তার দল ভ্যাঙ্কুবার নাইটস।

সোমবার ভোরে গ্লোবাল টি-টোয়েন্টির ফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ভ্যাঙ্কুবার নাইটস এবং উইনিপেগ হকস। যেখানে উইনিপেগের হয়ে খেলা আরব আমিরাতের অভিজ্ঞ ক্রিকেটার শাইমান আনোয়ারের ৪৫ বলে ৯০ রানের ইনিংসের সামনে ম্লান হয়ে গেছে ভ্যাঙ্কুবারের পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান শোয়েব মালিকের ৩৬ বলে ৬৪ ও আন্দ্রে রাসেলের ২০ বলে ৪৬ রানের ইনিংস।

তবে ঠিক এতোটা সহজেই চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি উইনিপেগ। শাইমানের ৪৫ বলে ৯০ রানের দুর্দান্ত ইনিংসে ভর করে আগে ব্যাট করতে নামা উইনিপেগ দাঁড় করায় ৮ উইকেটে ১৯২ রান। এছাড়া অসি ওপেনার ক্রিস লিন ২১ বলে ৩৭ এবং প্রোটিয়া অলরাউন্ডার জেপি ডুমিনি খেলেন ২৭ বলে ৩৩ রানের ইনিংস।

জবাবে শুরুটা বাজে করলেও শোয়েব মালিকের ৩৬ বলে ৬৪ রানের ইনিংসে জয়ের আশা দেখতে পায় ভ্যাঙ্কুবার। পরে রাসেল ঝড়ে তারা পৌঁছে যায় খুব কাছে। কিন্তু শেষ ওভারে পাকিস্তানের বাঁহাতি পেসার কালিম সানার পরপর দুই ডটের কল্যাণে ম্যাচটি সুপার ওভারে নিতে পারে উইনিপেগ। নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ভ্যাঙ্কুবারের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৬ উইকেটে ১৯২ রান। সবমিলিয়ে ৩ চার ও ৫ ছক্কার মারে ২০ বলে ৪৬ রান করেন রাসেল।

পরে সুপার ওভারে আগে ব্যাট করতে নামে রাসেল-মালিকদের ভ্যাঙ্কুবার। রাসেলের সঙ্গে ব্যাটিংয়ে নামানো হয় ফন ডার ডুসেনকে। কালিম সানার করা সুপার ওভারের প্রথম বলেই ছক্কা হাঁকিয়ে বড় কিছুর ইঙ্গিত দিয়ে রাখেন রাসেল। কিন্তু পরে আর সেটি করতে পারেননি। ওভারের চতুর্থ বলে আউট হওয়ার আগে ৩ বলে ৭ রান করেন রাসেল।

সে ওভারে সবমিলিয়ে ২ উইকেট নেয়ার পাশাপাশি মাত্র ৯ রান খরচ করেন কালিম। পরে ১০ রানের লক্ষ্যে উইনিপেগের হয়ে ব্যাট করতে নামেন ক্রিস লিন ও শাইমান আনোয়ার, বোলিংয়ে আসেন রাসেল। তার করা একটি বাই চার ও পরে ব্যাট থেকে একটি বাউন্ডারি মেরে দুই বল আগেই দলকে চ্যাম্পিয়ন বানিয়ে দেন লিন।

এসএএস/পিআর