যে কোনো পজিশনেই খেলার ক্ষমতা রাখেন মাহেদি

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:১২ এএম, ১৪ অক্টোবর ২০২১

বাংলাদেশ দলে শেখ মাহেদির অভিষেক ২০১৮ সালে, টি-টোয়েন্টি দিয়ে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওই এক ম্যাচ খেলেই যে বাদ পড়লেন দুই বছরের মধ্যে জাতীয় দলে আর দেখা যায়নি তাকে। অবশেষে এ বছরের শুরুতে আবার বাংলাদেশ দলে ফিরলেন মাহেদি।

এই সুযোগটা বেশ ভালোই কাজে লাগান তিনি। নিউজিল্যান্ড, জিম্বাবুয়ে, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড- সিরিজ শেষ করে দলে নিয়মিত মুখদের একজন হয়ে গেছেন তিনি। দেশের হয়ে এবার খেলবেন প্রথম বিশ্বকাপও।

তবে দলে ফিরতেই নিয়মিত হওয়া এরপর বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ, এতকিছু নাকি ভাবনাতেই ছিল না মাহেদির। তবে বাংলাদেশ কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর মতে দলের ফ্রি ক্রিকেটার হচ্ছেন মাহেদি। ওপেনিং থেকে শুরু করে যে কোনো পজিশনেই ব্যাট করার ক্ষমতা আর বল হাতে বেশ কার্যকরী বলেই বিশ্বকাপ দলে সহজেই সুযোগ পেয়ে গেছে তিনি।

মেহেদির ব্যাটিং সক্ষমতা ঘরোয়া ক্রিকেটে বেশ কয়েকবারই দেখা গেছে। তবে জাতীয় দলে প্রতিনিয়ত তার ব্যাটিং পজিশন পরিবর্তন হয় বলে, সেভাবে কখনো ঝলক দেখাতে পারেননি তিনি।

মেহেদির নিজেরও মনে হয়, একটা নির্দিষ্ট ব্যাটিং পেলে ভালো হয়। তবে দলের চাহিদাকেই প্রাধান্য দিচ্ছেন তিনি, ‘নির্দিষ্ট একটি ব্যাটিং পজিশন থাকলে অবশ্যই ভালো লাগে। কিন্তু আমার কাছে দলের চাহিদাটাই গুরুত্বপূর্ণ। আর এই ফরম্যাটে যে কোনো সময় যে কোনো কিছু করতে হতে পারে। আসলে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে এত দৃঢ়ভাবে চিন্তা-ভাবনা করলে হবে না। অবশ্যই দলের চাহিদাটাই সর্বপ্রথম, সেটাই আগে দেখতে হবে।’

মেহেদি যেমন দলের স্বার্থ আগে দেখেন, তেমনি প্রতিটি ম্যাচকেও দেন সমান গুরুত্ব। বিশ্বকাপ বাকিদের মতো তার কাছেও অনেক বড় মঞ্চ। তবে বাকি আন্তর্জাতিক ম্যাচের মতোই বিশ্বকাপ ম্যাচগুলো গুরুত্ব পাবে তার কাছে, ‘বিশ্বকাপ অনেক বড় মঞ্চ। কিন্তু আমার কাছে প্রত্যেকটি আন্তর্জাতিক ম্যাচই খুব গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বকাপ বলে আমার কাছে আলাদা কোনো গুরুত্ব নেই। প্রত্যেকটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ আমার কাছে সমান গুরুত্বপূর্ণ। সুযোগ হলে আন্তর্জাতিক ম্যাচে যেভাবে নিজেকে মেলে ধরার চেষ্টা করি বিশ্বকাপেও একই কিছু ইচ্ছে আছে।’

ব্যাটিংয়ের মতো বোলিংয়ে মেহেদিকে যেকোনো সময় ব্যবহার করা যায়। নতুন বল কিংবা পুরনো বল, মেহেদিও যেকোনো সময় চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত থাকেন। মনের ভেতর থাকা তার আত্মবিশ্বাসের কারণেই এমনটা সম্ভব, তার কথা শুনে মনে হবে এমনটা, ‘চ্যালেঞ্জটি নিজের সঙ্গে নিজের। যে পরিস্থিতিতেই খেলা হোক, যে আবহাওয়া বা কন্ডিশনে খেলেন না কেন, চ্যালেঞ্জ সবসময় নিজের সাথে নিজেরই নিতে হবে। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে ভালো করা খুব কঠিন। কারণ, এটা ছোট ফরম্যাট, স্বল্পসময়ের খেলা। এখানে অল্প সময়ে চিন্তা করে সবকিছু করতে হয়। এর মধ্যেই এখানে মেধা খাঁটিয়ে আপনাকে সবকিছু করতে হবে।’

মেহেদির হাতে বৈচিত্র্য খুব কম। তবে এক লাইন-লেন্থ ধরে একটানা বল করতে পারেন তিনি। বিশ্বকাপে শুধু তা দিয়েই হবে না। মেহেদি সেটা জানেন। বিশ্বকাপ শুরুর আগে তাই স্কিল নিয়ে বাড়তি কাজ করেছেন এবার বিশ্বকাপে বুদ্ধির মিশেলে সেটা প্রয়োগ করতে চান, ‘বোলিংয়ে কোনো বৈচিত্র নেই। তবে স্কিলে দক্ষতা তো অবশ্যই লাগবে। আমার কাছে মনে হয় এখানে বুদ্ধিটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আপনি কী করতে চাচ্ছেন, কী করলে ভালো হবে সেটি ঠিকঠাক এক্সিকিউট করতে পারলে আপনি সফল হবেন।’

এসএস/আইএইচএস/

শেখ মাহেদি হাসান, জন্ম: ১২ ডিসেম্বর, ১৯৯৪, রোল: অলরাউন্ডার, বোলিং স্টাইল: ডানহাতি অফব্রেক, ব্যাটিং স্টাইল: ডানহাতি ব্যাটার, টি-টোয়েন্টি অভিষেক: ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৮ বনাম শ্রীলঙ্কা

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]