কাতার-থাইল্যান্ডে ফুটবলারদের ক্যাম্প

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:৫৯ পিএম, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

সংবাদ সম্মেলন শেষে কাজী নাবিল আহমেদের সঙ্গে করমর্দন করে তাকে ধন্যবাদ দিলেন কাজী মো. সালাউদ্দিন। ন্যাশনাল টিমস কমিটির চেয়ারম্যানকে বাফুফে সভাপতি ধন্যবাদ দিয়েছেন সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ সামনে রেখে ফুটবলারদের জন্য একটা সুন্দর কর্মসূচি প্রণয়নের জন্য। একটি লক্ষ্য সামনে রেখে এ ধরনের পরিকল্পনা নিজেও খেলোয়াড়ি জীবনে পাননি বলে উল্লেখ করেছেন বাফুফে সভাপতি।

২০১৬ সালের ১০ অক্টোবর থিম্পুতে ভুটানের কাছে হারের পর অস্তিত্বহীন হয়ে পড়া জাতীয় ফুটবল দল নতুন করে পথচলা শুরু করলো ১৫ মাস পর। মঙ্গলবার বাফুফে ভবনে সংবাদ সম্মেলনে সভাপতি কাজী মো. সালাউদ্দিনকে পাসে বসিয়ে জাতীয় ফুটবল দলের জন্য পরিকল্পনা ঘোষণা করেন ন্যাশনাল টিমস কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ। সেখানে বেশ নতুনত্ব আছে।

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ সামনে রেখে এই প্রথম ফুটবলারদের দেশের বাইরে অনুশীলনের সুযোগ করে দিয়েছে বাফুফে। কাতারে দুই সপ্তাহ ও থাইল্যান্ডে এক সপ্তাহ ক্যাম্প করে জাতীয় দলকে পাঠানো হবে লাওসে ফিফা ফ্রেন্ডলি ম্যাচ খেলাতে।

২৭ মার্চ লাওসের বিপক্ষে ফ্রেন্ডলি ম্যাচ, আগস্টে ইন্দোনেশিয়ায় এশিয়ান গেমস এবং সেপ্টেম্বরের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ সামনে রেখে জাতীয় দলের জন্য ৭ মাসব্যাপী পরিকল্পনা তৈরি করেছে বাফুফে।

মঙ্গলবার ২৪ ফুটবলার নিয়ে প্রধান কোচ অ্যান্ড্রু ওর্ডের বিকেএসপি যাওয়ার মধ্যে দিয়ে শুরু হলো জাতীয় দলের এই নতুন পথচলা। বিকেএসপিতে ২ সপ্তাহ অনুশীলন শেষে ফুটবলারদের কাতার পাঠানো হবে ২৮ ফেব্রুয়ারি। ১৪ মার্চ ঢাকায় ফিরে ২ দিন পর দল চলে যাবে থাইল্যান্ডে। সেখানে এক সপ্তাহ ক্যাম্প করার পাশাপাশি স্থানীয় দুটি ক্লাবের সঙ্গে ২১ ও ২৩ মার্চ প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। থাইল্যান্ড থেকেই দল লাওস চলে যাবে ২৫ মার্চ।

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ সামনে রেখে ফুটবল দলের জন্য দীর্ঘ মেয়াদী এই অনুশীলন ব্যবস্থাকে বাফুফে সভাপতি কাজী মো. সালাউদ্দিন নিজেই উল্লেখ করেছেন ব্যতিক্রম হিসেবে। ‘ন্যাশনাল টিমস কমিটি যে পরিকল্পনা দিয়েছে, সেটাকে আমি সেরাই বলবো। এ ধরণের পরিকল্পনা আগে কখনো হয়নি। এমন কী আমি নিজেও এমন সুযোগ পাইনি খেলোয়াড় হিসেবে। আমরা সব রকম সুযোগ সুবিধা দিচ্ছি। এখন পারফর্ম করার দায়িত্ব খেলোয়াড়দের। আমি তো আর খেলে দিতে পারবো না’-বলেন বাফুফে সভাপতি।

দীর্ঘমেয়াদী এ পরিকল্পনায় জাতীয় দলের কোচিং স্টাফে যোগ হয়েছেন নতুন ফিটনেস কোচ। পর্তুগালের মারিও লেমস নামের এ ফিটনেস কোচকে মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে পরিচয় করিয়ে দেয়া হয়েছে সংবাদ সম্মেলনে। কয়েক দিনের মধ্যে দলে যোগ হবেন একজন বিদেশি গোলরক্ষক কোচ।

সাফের সর্বশেষ তিনটি আসরে চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে বাংলাদেশ। তিনটিতেই বিদায় নিয়েছে গ্রুপ পর্ব থেকে। দক্ষিণ এশিয়ায় আবার শির উঁচু করতেই কোমড় বেঁধে নামছে বাফুফে। কাতার-থাইল্যান্ডে অনুশীলন, লাওসের সঙ্গে ফিফা ফ্রেন্ডলি ম্যাচ এবং এশিয়ান গেমসে অংশ গ্রহণ-সব কিছুর একটাই উদ্দেশ্যে, সেপ্টেম্বরের সাফ চ্যাম্পিয়ন। ৭ মাসের এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য বাফুফের বাজেট ১ কোটি ২০ লাখ টাকা।

আরআই/এমএমআর/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :