উবার-পাঠাওয়ের পর যাত্রী পরিবহনে ইজিয়ার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:০৫ এএম, ২৭ নভেম্বর ২০১৭

অ্যাপভিত্তিক যাত্রী পরিবহন সেবা উবার-পাঠাওয়ের মতো ‘ইজিয়ার’ নামে আরেকটি স্মার্টফোনভিত্তিক রাইড শেয়ারিং অ্যাপের যাত্রা শুরু হচ্ছে ১ ডিসেম্বর। সম্পূর্ণ দেশীয় উদ্যোক্তা ও প্রযুক্তিবিদরা তৈরি করেছেন অ্যাপটি।

শুরুতে এই সেবা শুধুমাত্র রাজধানী ঢাকায় মিলবে। পর্যায়ক্রমে এই সেবা বন্দরনগরী চট্টগ্রাম ও সিলেটেও বিস্তৃত করা হবে। রোববার রাজধানীর এক রেস্টুরেন্টে এক সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে অ্যাপটি চালুর ঘোষণা দেয়া হয়।

অ্যাপটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ইনোভেডিয়াস প্রাইভেট লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক কামরুল হাসান ইমন বলেন, বিজয়ের মাসের প্রথমদিন থেকে ঢাকার পরিবহন সংকট মেটাতে মোটরসাইকেল ও প্রাইভেটকার যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছে দেবে।

কামরুল হাসান ইমন আরও বলেন, অ্যাপটির মাধ্যমে প্রাইভেটকার সেবা নিলে বেস ফেয়ার দিতে হবে ৫০ টাকা। প্রতি কিলোমিটারের ভাড়া ২০ টাকা এবং মিনিট প্রতি ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ২ টাকা ৫০ পয়সা। অন্যদিকে মোটরসাইকেলের বেস ফেয়ার নির্ধারণ করা হয়েছে ২৫ টাকা। প্রতি কিলোমিটারের ভাড়া ১২ টাকা। প্রতি মিনিটে গুণতে হবে ১ টাকা। যিনি মোটরসাইকেল ও প্রাইভেটকার দিয়ে যাত্রীর সঙ্গে রাইড শেয়ার দেবেন তাকে ভাড়ার ৮৫ শতাংশ দেয়া হবে। বাকি ১৫ শতাংশ কমিশন নেবে অ্যাপ নির্মাতারা।

ইজিয়ার অ্যাপের মাধ্যমে যিনি মোটরসাইকেল রাইড শেয়ার করবেন তাকে ইজিয়ার বলছে ‘রাইডার’ এবং প্রাইভেটকারের মাধ্যমে যিনি রাইড শেয়ার করবেন তাকে বলা হচ্ছে ‘পাইলট’।

অ্যাপটির নিরাপত্তার বিষয় উল্লেখ করে কামরুল হাসান ইমন বলেন, ‘আমাদের অ্যাপের মাধ্যমে যারা প্রাইভেট কার ও মোটরসাইকেলের মাধ্যমে যাত্রীদের সেবা দেবেন তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র, ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং ট্যাক্স টোকেন ভেরিফিকেশন করে পরিবহন সেবা দেয়ার জন্য অনুমতি দেয়া হচ্ছে। অন্যদিকে যিনি এই সেবা নেবেন তিনি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নিবন্ধিত হবেন। পর্যায়ক্রমে ইজিয়ার সেবা গ্রহীতাকে জাতীয় পরিচয়পত্রের মাধ্যমে সেবা নেয়ার জন্য নিবন্ধিত হতে হবে। এতে করে রাইডার ও পাইলটের নিরাপত্তার বিষয়টিও নিশ্চিত করা যাবে।

দেশে রাইড শেয়ারিং অ্যাপ উবার ও পাঠাওর মতই ইজিয়ারে বেশ কিছু কমন ফিচার রয়েছে। যেমন-পিক আপ পয়েন্ট থেকে ডেস্টিনেশন সেট করে রাইডারকে রিকোয়েস্ট পাঠানো, এস্টিমেটেড ভাড়া দেখে নেয়ার সুযোগ। রাইডার চাইলে তার রিকোয়েস্ট ক্যানসেলও করতে পারবেন। এছাড়াও রাইড শেষে সেবাদাতাও গ্রহীতা উভয়ই একে অপরকে রেটিং দেয়ার পাশাপাশি কমেন্টস করার সুযোগ পাবেন। তবে উবারের মত মোটরসাইকেল ও গাড়ির মডেল, সিসি এবং এয়ারকন্ডিশন ও নন-এয়ারকন্ডিশন পৃথক করে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়নি। এটি পাঠাওয়ের মতোই শুধু গাড়ি ও মোটরসাইকেলকে আলাদা করা হয়েছে।

এমএ/এআরএস/এমএস

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - jagofeature@gmail.com

আপনার মতামত লিখুন :