বিশ্বের প্রথম কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার স্মার্টফোন হুয়াওয়ে মেট টেন

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক
তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:১৭ এএম, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ | আপডেট: ১০:২৮ এএম, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭
বিশ্বের প্রথম কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার স্মার্টফোন হুয়াওয়ে মেট টেন

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসমৃদ্ধ কিরিন চিপ, পেশাদার মানের পোর্ট্রেট ফিচার, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বোকেহ ইফেক্ট, রিয়েল টাইম শনাক্তকরণ এবং অভিনব লাইকা লেন্সের ক্যামেরাসমৃদ্ধ ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইস মেট টেন সিরিজের স্মার্টফোন সম্প্রতি বিশ্ববাজারে নিয়ে এসেছে স্মার্টফোন ব্র্যান্ড হুয়াওয়ে। ‘মেট টেন’ সিরিজের স্মার্টফোনগুলোতে বিশ্বে প্রথমবারের মতো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স ব্যবহার করা হয়েছে বলে হুয়াওয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

হুয়াওয়ে মেট টেন সিরিজের গুরুত্বপূর্ণ ফিচার :

ডিসপ্লে
থ্রিডি গ্লাস বডির হ্যান্ডসেটটি হুয়াওয়ে ৫.৯ ইঞ্চির (মেট ১০ প্রো-তে ৬ ইঞ্চি) ফুলভিউ ও এলইডি ডিসপ্লে এবং এইচডিআর১০ সমর্থিত প্রযুক্তিসমৃদ্ধ, যা অনায়াসে উজ্জ্বল কালার দিতে সক্ষম।

প্রসেসর
কিরিন ৯৭০ চিপসেট, যা বিশ্বের প্রথম কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসমৃদ্ধ প্রসেসর যেটিতে ব্যবহার করা হয়েছে নিউরাল নেটওয়ার্ক প্রসেসিং ইউনিট (এনপিইউ)। ৬ জিবি র্যামের এ ফোনে ১২৮ জিবি রম ব্যবহার করা হয়েছে। এছাড়া ২৫৬ জিবি পর্যন্ত মাইক্রোএসডি কার্ড ব্যবহার করার সুযোগ রয়েছে ফোনটিতে। অক্টা-কোর এআরএম কোর্টেক্স সিপিইউ, প্রথমবারের মতো ১২টি কোরের মালি-জি১২ জিপিইউ এবং প্রথম এনপিইউ প্রযুক্তি যুক্ত করা হয়েছে মেট ১০ সিরিজে।

ms

ক্যামেরা
সামিলাক্স-এইচ লেন্সের সমন্বয়ে এতে আছে নতুন লাইকা ডুয়েল ব্যাক ক্যামেরা (১২ মেগাপিক্সেল আরজিবি+ ২০ মেগাপিক্সেল মনোক্রম); ক্যামেরার অ্যাপার্চার এফ/১.৬ যা বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে বড়, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির রিয়েল টাইম সিন, অবজেক্ট শনাক্তকরণ এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির বোকেহ ইফেক্ট প্রযুক্তি রয়েছে ক্যামেরায়।

এছাড়া ৮ মেগাপিক্সেলের লাইকা সেলফি ক্যামেরায় আছে ওয়াইড অ্যাঙ্গেল প্রযুক্তি, অটোফোকাস, বিএসআই সেন্সর, উন্নত ফ্ল্যাশ, জিও ট্যাগিং, এইচডিআর, প্যানোরমা, সেলফ টাইমার ও ফেইস ডিটেকশন ফিচার। এগুলোর কারণে কম আলোতেও প্রাণবন্ত ছবি তুলতে সক্ষম পি-১০। প্রফেশনাল ফটোগ্রাফারদের কথা মাথায় রেখে এতে যুক্ত করা হয়েছে প্রো ফটো মোড ও জেনুইন বোকেহ ইফেক্ট প্রযুক্তি যেগুলো হ্যান্ডসেটটিকে ক্যামেরার দিক থেকে আরো বিশেষায়িত করেছে।

ব্যাটারি
কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যাটারি ম্যানেজমেন্টসমৃদ্ধ ৪০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারি চার্জ করা যাবে টিউইভি ফাস্ট-চার্জ সেফটি সনদপ্রাপ্ত হুয়াওয়ের সুপারচার্জ প্রযুক্তির মাধ্যমে। এছাড়া নরমাল, স্মার্ট ও আলট্রা পাওয়ার সেভিং মুডের সমন্বয়ে এতে তিন লেভেলের ইন্টেলিজেন্ট পাওয়ার সেভিং প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে।

অন্যান্য
বিশ্বমানের বায়োমেট্রিক ৩.০ সংস্করণের ফিঙ্গারপ্রিন্ট রিকোগনিশন প্রযুক্তিটি এবার রাখা হয়েছে হ্যান্ডসেটের সামনের অংশে, যার মাধ্যমে স্মার্টফোন আনলক করা যায়। শুকনো এমনকি পানি হাতেও ৩৬০ ডিগ্রি কোণে এর মাধ্যমে ফোন আনলক করা, ছবি তোলা এবং কল রিসিভ করা যায়। উল্লেখ্য, মেট টেন প্রো আইপি৬৭ সনদপ্রাপ্ত পানি ও ধুলাবালিরোধক।

বিশ্ববাজারে চলে এলেও দেশের বাজারে এখনও উন্মুক্ত করা হয়নি হুয়াওয়ে মেট টেন। তবে শিগগিরই বাংলাদেশের স্মার্টফোন বাজারে মেট টেন সিরিজের ডিভাইসগুলো আনুষ্ঠানিকভাবে উন্মোচন করা হবে বলে জানিয়েছেন হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ)-এর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

এআরএস/আইআই

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - jagofeature@gmail.com