ঘুরে আসুন টাঙ্গাইলের ৫ জমিদার বাড়ি

ভ্রমণ ডেস্ক
ভ্রমণ ডেস্ক ভ্রমণ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:৩২ পিএম, ১৮ মে ২০২২

ভ্রমণপিপাসুদের কাছে টাঙ্গাইল বেশ জনপ্রিয় এক স্থান। সেখানে আছে ছোট-বড় অনেক রাজবাড়ি। ঢাকা থেকে টাঙ্গাইলের দুরত্ব কম হওয়ায় ছুটির দিনসহ বিভিন্ন সময়ে পর্যটকরা ঢুঁ মারেন টাঙ্গাইলে।

বিখ্যাত সব রাজবাড়ি দর্শনের পাশাপাশি টাঙ্গাইলে বিখ্যাত চমচমের স্বাদ গ্রহণ করতে আপনিও চাইলে একদিনেই ঘুরে আসতে পারেন টাঙ্গাইল থেকে।

লর্ড কর্ণওয়ালিস চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত নামে একটি জমিদারী প্রথা চালু করেন। এই প্রথার মাধ্যমে সারা বাংলার বিভিন্ন অঞ্চলে জমিদার ছড়িয়ে যায় এর ফলে পুরো ভারতবর্ষের হিসাব নিকাশ ব্রিটিশদের জন্য সহজ হয়।

এরই রেশ ধরে জমিদাররা নিজেদের বসবাসের জন্য বিভিন্ন স্থানে গড়ে তোলেন সুন্দর সব অট্টালিকা। যা পরবর্তী সময়ে রাজবাড়ি নামে খ্যাতি পায়।

একেক জমিদারদের সৌখিনতা ফুটে উঠতো তাদের কারুকার্যপূর্ণ রাজবাড়িতে। প্রতিটি জমিদার বাড়িই তখনকার শিল্পীদের হাতের নিপুণ ছোঁয়াতে পূর্ণতা পেত।

বহু বছর কেটে গেলেও এসব জমিদার বাড়ি আজও মাথা উঁচু করে সগৌরবে দণ্ডায়মান। বাড়িগুলো কালের সাক্ষী হয়ে আজও সবার কৌতূহল বাড়াচ্ছে। এক টাঙ্গাইলে গেলেই আপনি দেখতে পারবেন অনেকগুলো জমিদার বাড়ি।

তার মধ্যে কতগুলো আজও সংরক্ষিত আছে, এছাড়া বেশিরভাগই সংরক্ষণের অভাবে নষ্ট হয়ে গেছে। জেনে নিন টাঙ্গাইল ভ্রমণে কোন কোন জমিদার বাড়ি অবশ্যই দেখবেন-

jagonews24

মহেরা জমিদার বাড়ি

টাঙ্গাইল শহর থেকে প্রায় ১৮ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত এই জমিদার বাড়ি। ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কের নাটিয়াপাড়া বাসস্ট্যান্ড থেকে প্রায় ৪ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত এই জমিদারবাড়ি।

টাঙ্গাইলে অবস্থিত বিভিন্ন জমিদার বাড়ির মধ্যে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হলো মহেরা জমিদার বাড়ি। আজও চকচক করছে এ বাড়ির দেওয়াল। এ বাড়ির দিকে তাকালেই আপনি বুঝতে পারবেন, তখনকার কারিগরদের হাতের ছোঁয়া কি অপূর্ব ছিল। ১৮৯০ সালেরও আগে নির্মিত হয় এই জমিদার বাড়ি। স্পেনের করডোভা নগরের আদলে নির্মিত এই জমিদার বাড়ি।

কালীচরণ সাহা ও আনন্দ সাহা নামে দুই ভাই ১ হাজার ১৭৪ শতাংশ জমির উপর এই বাড়ি নির্মাণ করেন। এই জমিদার বাড়িতে ঢুকতেই চোখে পড়বে বিশাখা পুকুর। ভেতরে ঢুকলে চৌধুরী লজের দেখা পাবেন।

এর পাশেই আছে আকর্ষণীয় এক ভবন। যার নাম আনন্দ লজ। তার পাশে আছে মহারাজ লজ। এই জমিদার বাড়ির সবচেয়ে আকর্ষণীয় ও সুন্দর ভবনের নাম কালীচরণ লজ। ইংরেজি ইউ অক্ষরের আদলে করা ভবনটি রানিদের জন্য নির্মাণ করা হয়। তাই একে রানি ভবনও বলা হত।

জমিদার বাড়ির ভেতরে বাগান, শিশুপার্ক, বিভিন্ন আর্টিফিশিয়াল স্থাপনা আছে। এছাড়া পাখ-পাখালি, বাগান, পুকুর, বিল্ডিং সব মিলিয়ে স্বপ্নপুরীর মতো মনে হয় মহেরা জমিদার বাড়ি।

jagonews24

হেমনগর জমিদারবাড়ি

জমিদার হেমচন্দ্রের নামেই স্থানটির নামকরণ হয় হেমনগর। টাঙ্গাইল থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে ও গোপালপুর থেকে প্রায় ১৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এই জমিদার বাড়ি। ১৮৯০ সালের দিকে হেমচন্দ্র এখানে তার এই সুন্দর রাজকীয় বাড়িটি নির্মাণ করেন ১৮০০ বিঘার উপরে। জানা যায়, দিল্লি ও কলকাতার কারিগররা এই বিশাল জমিদার বাড়ি নির্মাণ করেন।

স্থানীয়রা এই জমিদার বাড়িকে পরীর দালান নামেই বেশি চেনেন। সেখানে ঢুকতেই চোখে পড়ে এর মূল ভবনের চাকচিক্য। দামি পাথর ও রঙিন কাঁচ ব্যবহার করে বাড়ির দেওয়া এমনকি পিলারগুলোতেও কারুকার্য করা।

এই জমিদার বাড়ির মেঝেতেও অপূর্ব নকশা করা আছে। এই বাড়িতে ২৫টি কক্ষ আছে। যার সামনের অংশ পুরো ইউরোপীয় ধাচের। একসময় রাজবাড়ির মাঝখানে ছিলো একটি দিঘী, যা ভরাট হয়ে গেছে।

এর কাছাকাছি বেশ কিছু পুরনো নিদর্শন আছে, যা রাজা হেমচন্দ্র তার আত্মীয় স্বজনের জন্য নির্মাণ করেছিলেন। সেগুলো ছিল ছোট ছোট কুঠির। পর্যটকদের কাছে এই রাজবাড়িও জনপ্রিয় একটি টুরিস্ট স্পট।

jagonews24

করটিয়া জমিদার বাড়ি

মোঘল স্থাপত্য শিল্পের অন্যতম নিদর্শন হলো করটিয়া জমিদার বাড়ি। টাঙ্গাইল সদর উপজেলা থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে করটিয়া ইউনিয়নের পুটিয়া নদীর তীরে এই জমিদার বাড়ি অবস্থিত।

১৯৪৭ সালে দেশভাগের সময় এই বাড়ির জমিদার ভারতে চলে যান। তবে এখন তার কিছু বংশধরেরা বাস করছে বাড়িটিতে। এজন্য পর্যটকদের দুই ঈদের সময় ছাড়া তেমন ঢুকতে দেওয়া হয় না।

জানা যায়, বিখ্যাত পন্নী পরিবারের ১১ তম পুরুষ সাদত আলী খান পন্নী করটিয়াতে পন্নী বংশের ভিত প্রতিষ্ঠা করেন। তখন থেকেই তার বংশধরেরা এখানে বসবাস করতে শুরু করেন।

jagonews24

দেলদুয়ার জমিদার বাড়ি

টাঙ্গাইলের একমাত্র মুসলিম জমিদার বাড়ি হচ্ছে দেলদুয়ার জমিদার বাড়ি। সেখানকার দেলদুয়ার উপজেলায় অবস্থিত এই জমিদার বাড়ি। স্থানীয়দের কাছে এটি নর্থহাউজ নামেও পরিচিত।

ঔপনিবেশিক স্থাপত্যশৈলীর আদলে তৈরি একতলা বিশিষ্ট এই জমিদার বাড়ির সৌন্দর্যের তুলনা হয় না। লাল-সাদা রঙের একতলা এই জমিদার বাড়ির শিল্পকর্মে মসজিদের মতো কারুকার্য দেখা যায়। যা মনে প্রশান্তি এনে দেয়। এই জমিদার বাড়ির ঠিক মাঝ বরাবর আছে ছাদ। সেটি বেশ ভিন্ন। সেখানেই নাকি বাড়ির নারীরা আড্ডা দিতেন।

জমিদার বাড়ির ঠিক পূর্ব পাশে আছে লোহার গার্ডেন চেয়ার, গোল টেবিল, পানির ফোয়ারা। পেছনে আছে আম বাগান। পূর্ব দক্ষিণ কোণে রয়েছে তিনটি বিশাল গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদ, এর পাশেই আছে একটি বিশাল। রাজবাড়ির সামনে দেখতে পাবেন পারিবারিক কবরস্থান।

১৯৪৭ সালে দেশভাগের পর জমিদারি প্রথা বিলুপ্ত হলে এই জমিদার বংশের সমাপ্তি ঘটে। অন্যান্য জমিদার বাড়ির তুলনায় এটি বেশ ভালো অবস্থানে আছে। এখনো একজন কেয়ারটেকার বহাল আছেন এই রাজবাড়ি দেখভালের জন্য।

jagonews24

পাকুটিয়া জমিদার বাড়ি

টাঙ্গাইল সদর থেকে ৩৫ কিলোমিটার দক্ষিণে নাগরপুর উপজেলার লৌহজং নদীর তীরে পাকুটিয়া জমিদার বাড়ি অবস্থিত। ঊনবিংশ শতাব্দীর শুরুতে রামকৃষ্ণ সাহা মন্ডল নামক একজন ধর্নাঢ্য ব্যক্তি পাকুটিয়া জমিদার বাড়ি স্থাপন করেন।

১৫ একর জায়গার উপর ৩টি অট্টালিকা নির্মাণ করেন তিনি। এগুলোর একত্রে নাম রাখেন তিন তরখ। অট্টালিকাগুলো আকারে বড়, মেঝো ও ছোট হলেও দেখতে কিন্তু একই রকম।

এই বাড়িতে ঢুকতেই চোখে পড়বে ৩টি নাট মন্দির। রেলিং টপ কিংবা কার্নিশ যে দিকেই চোখ যোবে দেখবেন ছোট ছোট নারী মূর্তি। প্রতিটি অট্টালিকার মাঝে আছে দুটি সুন্দর নারী মূর্তি। তার পাশে আছে একটি করে ময়ূর।

১০০ বছরের পুরোনো ছায়াঘেরা সুনিবিড় পরিবেশ জমিদারদের আমেজটা আজও ধরে রেখেছে। জমিদার বাড়িটি ভ্রমণপিপাসু ও ইতিহাসপ্রেমীদের তৃষ্ণা মেটাচ্ছে আজও।

বাড়ির পেছনে আছে একটি দিঘি ও ২টি পরিত্যক্ত কূপ। বর্তমানে জমিদার বাড়িটি বিসিআরজি ডিগ্রি কলেজ হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

জেএমএস/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]