ফলন ভালো হলেও হতাশায় মৌলভীবাজারের কমলা চাষিরা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মৌলভীবাজার
প্রকাশিত: ০১:২৭ পিএম, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১

অনাবৃষ্টিতে ফুল ঝরে যাওয়ায় কমলার ফলনে সাময়িক বির্পযয় দেখা দিলেও আশানুরূপ ফলন হয়েছে । মৌলভীবাজারের সীমান্তবর্তী উপজেলা জুড়ী। এলাকার লাটিটিলা বনভূমির লালছড়া, রূপা ছড়া, শুকনা ছড়ার টিলায় টিলায় ছোট বড় কমলার গাছ।

সবুজ পাতার ফাঁকে ফাঁকে ঝুলছে সবুজ কমলা। সাফারি র্পাক নির্মাণের ঘোষণার পর থেকে চাষিরা হতাশায় পড়েছেন। বাগানের পরিচর্যায় মন দিচ্ছেন না।

নাগপুরি, খাসি, ছাতকী, চায়নিজ কমলা। সুদুর চীন দেশ ও বিভিন্ন অঞ্চলে ব্যাপক চাষ হয় বলে ফলটির এমন নামকরণ। তবে মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার গোয়ালবাড়ি ইউনিয়নের লালছড়া গ্রামের কমলা চাষি মুর্শেদ মিয়ার বাগানে বিভিন্ন জাতের কমলা চাষ হচ্ছে। চলতি বছর বৃষ্টির অভাব থাকলেও পানি সেচ দেওয়ায় ভালো ফলন হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, মুর্শেদের বাড়ির চার পাশে টিলার ঢালে সারি সারি কমলা গাছ। গাছভর্তি ফল। স্থানীয় জাতের কমলার পাশাপাশি সেখানে রয়েছে বেশ কিছু চায়নিজ কমলার গাছ। চায়নিজ কমলার গাছ ও ফল স্থানীয় জাতের চেয়ে আকারে ছোট।

Orange-(4).jpg

ঘুরে ঘুরে বাগান দেখার ফাঁকে কথা হয় বঝি টিলার জয়নুল মিয়া ও লাল টিলার মুর্শেদ মিয়ার সাথে তারা জানান দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় জাতের কমলার চাষ করছেন। তাদের দুটি বাগানে স্থানীয় জাতের দুই শতাধিক কমলা গাছ রয়েছে।

অনেক দিন আগ থেকে হায়ছড়া ,লালছড়া, শুকনাছড়া, রুপাছড়া, জরিছড়া ও কচুরগুল গ্রামের লোকজন বিছিন্নভাবে নিজ উদ্যোগে কমলা চাষ করে আসছেন।

২০০১ সালের দিকে কৃষি বিভাগের তত্ত্বাবধানে এ এলাকায় নতুনরূপে কমলা চাষ শুরু হয়। মুর্শেদ মিয়া সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার একটি নার্সারি থেকে কৌতূহলী হয়ে ১৮০টি চায়নিজ কমলাগাছের চারা কিনে আনেন। বাগানের ফাঁকে ফাঁকে লাগান এসব চারা।

জয়নুল মিয়া বলেন, চায়নিজ কমলার একেকটি গাছে এক থেকে দেড় হাজার ফল ধরেছে। কার্তিক মাসের শেষ দিকে ফল পুরোপুরি পাকবে। তখন বিক্রি শুরু করবেন। স্থানীয় জাতের কমলায় রোগবালাই বেশি দেখা দেয়। তবে চায়নিজ কমলায় এখনো রোগবালাই দেখা দেয়নি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন বলেন, কৃষি বিভাগের তত্ত্বাবধানে যে সব বাগান আছে সেখানে তেমন সমস্যা হয়নি। আব্দুল গফুর, মুর্শেদ মিয়াও জয়নুল মিয়ার বাগানের চায়নিজ কমলার ফলন সরেজমিনে দেখাশোনা চলছে।

তিনি আরো বলেন, মৌসুমের শুরুতে অনাবৃষ্টির কারণে ফুল ঝরে গিয়ে কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। তবে আশানুরূপ ফলন হবে।

মুর্শেদ মিয়া বলেন, কৃষি বিভাগের পরামর্শে ফলটির বীজ থেকে চারা উৎপাদন করি। ছোট সাইজের কমলার জন্ম চীনে। সে কারণে বাজারে এটা চায়নিজ কমলা নামে পরিচিত। স্থানীয় জাতের চেয়ে চায়নিজ কমলা মিষ্টি বেশি। ফলে অনেকেই সেটা পছন্দ করে।

কমলা চাষি মানিক মিয়া ও তার স্ত্রী ছালেহা বেগম বলেন,আর কিছুদিন পড়েই দেশি জাতের কমলা বাগানের গাছ থেকে পাড়া হবে। এসব কমলা পাইকারদের কাছে বিক্রি হবে।

তাদের দুটি কমলাবাগানে ৩০০ গাছ রয়েছে। ফলন সম্পর্কে জানতে চাইলে ছালেহা বললেন, ‘এইবার কমলার ফুল ঝরে যাওয়ার পরও ভালো ফল আসছে।’ সাফারির্পাক নির্মাণের খবর শুনে শঙ্কায় আছি।

Orange-(4).jpg

হতাশায় এলাকার পুরুষরা কমলার পরিচর্যা ছেড়ে দিয়েছেন। কমলার বাগান থাকবে কি? না, আমরা থাকব কি? না এমন প্রশ্নে এলাকায় বসবাসকারীদের মনে।

এলাকাবাসী জানান, লালছড়ার আশপাশের হায়ছড়া শুকনাছড়া, রুপাছড়া, জরিছড়া ও কচুরগুল গ্রামের টিলায় টিলায় রয়েছে কমলার বাগান। বির্যয়ের পরও বিভিন্ন বাগানে এবার কমলার ফলন আশানুরূপ হয়েছে।

চাষিরা জানান, এখানকার কমলা দেশি জাতের। আকারভেদে ১০০ কমলা এক হাজার টাকা থেকে এক হাজার ২০০ টাকায় পাইকারি বিক্রি হয়। সিলেট, কিশোরগঞ্জের ভৈরব ও চট্টগ্রামের ফলের আড়ত দারেরা এখান থেকে কমলা কিনে নেন। এখানে বছরে কোটি টাকার কমলা বেচা কিনা হয়।

বানর ও কাঠবিড়ালি ফল নষ্ট করে ফেলে। সে কারণে পুরোপুরি পাকার আগেই চাষিরা কমলা পেড়ে বিক্রি করে ফেলেন। জেলার ১৫৪ হেক্টর টিলাভূমিতে কমলার চাষ হয়। গাছের সংখ্যা প্রায় ১ লাখ। ব্যক্তি মালিকানাধীনসহ বাগান আছে ১৯৩টি।

মৌলভীবাজার কৃষি অধিদপ্তরের উপ-সহকারী পরিচালক কাজী লুৎফুল বারি বলেন, কমলা চাষিদের উদ্বুদ্ধ করেছেন। সাময়িক বির্পযয়ের পরও আশানুরূপ ফলন হয়েছে। কমলা চাষের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে জুড়ী, বড়লেখা, কুলাউড়া উপজেলায়। কমলা চাষিদের আমরা পরামর্শ দিয়ে, সহযোগিতা দিয়ে আসছি।

আব্দুল আজিজ/এমএমএফ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]