মাল্টা ও লেবু চাষে লাখোপতি সালাউদ্দিন

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি শরীয়তপুর
প্রকাশিত: ০৯:২৪ এএম, ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

সালাউদ্দিন মোল্লা ঢাকার ফকিরাপুলে মিষ্টির ব্যবসা করতেন। এতে লাভও ভালো হতো। মিষ্টির ব্যবসা ভালো চললেও পরে সিদ্ধান্ত নেন ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে গ্রামে গিয়ে মাল্টা ও লেবু বাগান করবেন। কিন্তু তার এ সিদ্ধান্ত প্রথমে পরিবারের কেউ মেনে নিতে পারেননি।

তবে সালাউদ্দিন দমে যাওয়ার পাত্র নন। ২০১৩ সালে ৫০ শতক জমি লিজ নিয়ে ৩০০টি লেবু গাছ দিয়ে লেবু চাষ করেন এবং ২০১৮ সালে দুই একর ৪০ শতাংশ জমি লিজ নিয়ে এক হাজার ৩০০টি গাছ দিয়ে মাল্টার বাগান করেন। মাত্র এক বছরে লেবু ও দুই বছরে মাল্টা চাষে তিনি আজ সফল লেবু ও মাল্টা চাষি। বছরে তার বাগান থেকে প্রায় বিশ লাখ টাকার মাল্টা ও লেবু বিক্রি হয়। এই বাগানগুলোতে হওয়া লেবু ও মাল্টা চারা বিক্রি করে তিনি আরও চার লাখ টাকা পান।

jagonews24

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার সখিপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের আনু সরকার কান্দি গ্রামের মো. কাশেম মোল্লার ছেলে সালাউদ্দিন মোল্লা (৪৫)।

টাঙ্গাইল জেলায় লেবু ও মাল্টা চাষের একটি বাগান দেখে তিনি এই ফল চাষে আগ্রহী হন। ২০১৩ সালে ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে তিনি গ্রামের বাড়িতে এসে লেবু ও মাল্টার বাগান শুরু করেন। বর্তমানে তিনি সাত একর ৯০ শতক জমিতে লেবু ও দুই একর ৪০ শতক জমিতে মাল্টার বাগান করেছেন। সেখানে আছে ৭ হাজার ৬০০ লেবু ও এক হাজার ৮০০ মাল্টাগাছ গাছ।

jagonews24

সালাউদ্দিন মোল্লা বলেন, লেবু ও মাল্টা চাষে তার বেশ আগ্রহ। তার বাগানে চায়না থ্রি, সিলকেট লেবু এবং পাকিস্তানি বেড়িকাটা মাল্টা ও ভারতীয় প্রলিত মাল্টা জাতের গাছ আছে। চারা রোপণের এক বছরের মধ্যে লেবু ও দুই বছরের মধ্যে মাল্টা ফলন শুরু হয়। বর্তমানে তার বাগান পরিচর্যার জন্য বারোজন লোক কাজ করেন। তার দেখাদেখি এলাকার অনেক বেকার যুবক মাল্টা-লেবু বাগান করে বেকারত্ব দূর করছেন।

সালাউদ্দিন মোল্লার বাবা কাশেম মোল্লা এখন পাশাপাশি ছেলের লেবু ও মাল্টা বাগানেও কাজ করেন। তার বাগানের নাম রেখেছেন ‘মোল্লা লেবু ও মাল্টা বাগান’।

jagonews24

তিনি নিজের বাগানে মাতৃগাছ থেকে বাকল দিয়ে ‘গ্রাফটিং’ করে চারা উৎপাদন করেন। তিনি বলেন, এ বছর প্রায় ২০ লাখ টাকার লেবু এবং আড়াই লাখ টাকার মাল্টা বিক্রি করেছেন। বর্তমানে তার লেবু ও মাল্টা নিজ এলাকা ছাড়িয়ে শরীয়তপুরের বিভিন্ন উপজেলা ও চাঁদপুর জেলার বিভিন্ন বাজারে পৌঁছে গেছে। দূর-দূরান্তের ব্যবসায়ীরা তার বাগানের লেবু ও মাল্টা কিনে নিয়ে বিক্রি করেন। বাগান থেকে ব্যবসায়ীরা পাইকারি মাল্টা ১২০ ও ৮০ পিচ লেবু ৩০০ টাকা দরে কিনেন ।

শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সরেজমিনে দেখা যায়, সালাউদ্দিন তার মাল্টা বাগানের পরিচর্যা করছেন। বিভিন্ন এলাকার মানুষ এসে সেলফি তুলছেন। কিনে নিচ্ছেন মাল্টা ও লেবু।

jagonews24

শেখ খলিলুর রহমান, কালু মোল্লা, সাদ্দাম হোসেন ও ফিরোজ আহম্মদ ঢালী বলেন, বাজার থেকে মাল্টা কিনে খেয়েছি। তার তুলনায় এখানকার নতুন বাগানে চাষ করা মাল্টার স্বাদ বেশি ভালো এবং মিষ্টি বলে মনে হয়েছে। এছাড়া তার বাগানের লেবু কিনেছি, খাঁটি লেবু।

ভেদরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ফাতেমা ইসলাম বলেন, সালাউদ্দিন মোল্লার বাগানে আমি গিয়েছি। তার উৎপাদিত মাল্টা আকারে বড় ও মিষ্টি। তাছাড়া তিনি লেবু চাষেও বেশ সফল। তিনি কৃষি কার্যালয়ের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখেন।

মো. ছগির হোসেন/এমএমএফ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]