আজকের কৌতুক : পাওনাদারকে বসিয়ে রাখার কৌশল

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:৪২ এএম, ২৯ জুন ২০২১

পাওনাদারকে বসিয়ে রাখার কৌশল
পিন্টু: তোমার স্টুডিওতে ঢোকার মুখে দেখলাম টুলের ওপর গম্ভীর মুখে একজন বসে আছেন। তা উনি কি ছবি তোলাতে এসেছেন?
সেন্টু: আরে না ভাই, ও হচ্ছে ফার্নিচারের দোকানের লোক। ওই টুলটা বানিয়েছিল, বকেয়া পাওনার জন্য বসে আছে।
পিন্টু: তা ওর টাকাটা মিটিয়ে দিচ্ছ না কেন?
সেন্টু: আরে ও বলেছে, যতক্ষণ না ওর পাওনা টাকা বুঝে পাচ্ছে; ততক্ষণ আর একজন পাওনাদারকেও দোকানে ঢুকতে দেবে না।

****

খোলা জানালা দিয়ে সব কিছু চুরি
একবার নান্টু উচ্চ রক্তচাপের চিকিত্সা নিতে ডাক্তারের কাছে গেল। ডাক্তার সব কিছু পরীক্ষা করে নান্টুকে প্রতিরাতে জানালা খুলে ঘুমাতে বলে ১৫ দিন পর দেখা করতে বললেন।

নান্টু সব ঠিকঠাকমতো করে ১৫ দিন পর ডাক্তারের সঙ্গে দেখা করতে গেল। ডাক্তার তাকে দেখে বললেন-
ডাক্তার: কী নান্টু মিয়া, রোগ পালিয়ে গেছে তো?
নান্টু: ডাক্তার সাহেব, রোগ তো পালায়নি। কিন্তু খোলা জানালা দিয়ে আমার মোবাইল, ল্যাপটপসহ সব কিছু চুরি হয়ে গেছে।

****

ঘরে বসে চাইনিজ রান্নার বই
এক ভদ্রলোক ‘ঘরে বসে চাইনিজ রান্না’ বই আর চাইনিজের আনুষঙ্গিক কাঁচামাল কিনে ঘরে ফিরছিলেন। উদ্দেশ্য বাড়িতে নিজেই চাইনিজ রান্না করবেন।

কিন্তু পথে চাইনিজের কাঁচামাল সব হাইজ্যাক হয়ে গেল। কিছুক্ষণ পর ভদ্রলোক হেসে উঠলেন, ‘হেহ গাধা। আসল জিনিস তো আমার হাতে’ বলে বইটা পকেট থেকে বের করলেন।

এসইউ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]