হাবিপ্রবির সবকিছু স্বাভাবিক হলেও বন্ধ ক্যাফেটেরিয়া

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০১:৪৯ পিএম, ১৬ জানুয়ারি ২০২২
বন্ধ ক্যাফেটেরিয়া

করোনার কারণে প্রায় দেড় বছর বন্ধের পর ক্যাম্পাসমুখী হয়েছেন হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) শিক্ষার্থীরা। বর্তমানে সব ব্যাচের ক্লাস-পরীক্ষা চলমান। এছাড়া সম্প্রতি ভর্তি হওয়া ২১ ব্যাচের ওরিয়েন্টেশন ২৩ জানুয়ারি এবং ক্লাস ২৪ জানুয়ারি শুরু হবে। সব কিছু স্বাভাবিক হতে থাকলেও চালু হয়নি টিএসসির ক্যাফেটেরিয়া, যা নিয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে অসন্তোষ বিরাজ করছে।

cantin1

জানা যায়, লিখিত চুক্তি না করে মৌখিকভাবে দায়িত্ব দেওয়া হয় ‘দিলশাদ’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে। বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পর ক্যাফেটেরিয়া চালু করতে একাধিকবার প্রশাসন থেকে বলা হলেও বিষয়টি আমলে নেয়নি ক্যাফেটেরিয়া পরিচালনাকারীরা।

কৃষি অনুষদের শিক্ষার্থী নুসরাত বলেন, টিএসসিতেই পড়াশোনা ও আড্ডা দেয়। পাশাপাশি ক্লাসের দীর্ঘ বিরতির সময় টিএসসিতে যাই। কিন্তু ক্যাফেটেরিয়া বন্ধ থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইর থেকে খাবার আনতে হয়। সেসব খাবারের মান এবং দাম নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।

cantin1

ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ বিভাগের শিক্ষার্থী শাহরিয়ার বলেন, বাহিরের বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাফেটেরিয়ার গল্প শুনি, কিন্তু আমাদের ক্যাফেটেরিয়া যারা চালাতো তারা ক্যাম্পাসের বাহিরের দোকান থেকেও খাবারের দাম বেশি রাখতো। দেখা যেত বাহিরে সে জিনিস পাঁচ টাকা এখানে সেটা ১০ টাকা। এছাড়া স্বল্প মূল্যে প্যাকেজ সিস্টেমে কিছুই বিক্রি হতো না। এখন তো বন্ধ রাখা হয়েছে। ফলে খাবার নিয়ে মাঝে মাঝেই ভোগান্তিতে পড়তে হয়।

cantin1

ক্যাফেটেরিয়া কবে থেকে চালু হবে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক ড. ইমরান পারভেজ বলেন, বিষয়টি নিয়ে অবগত রয়েছি। ক্যাফেটেরিয়া খোলার জন্য একাধিকবার তাদের বলা হয়েছে কিন্তু তারা কথা শোনেনি। উপাচার্যের পক্ষ থেকেও নির্দেশনা আছে। আমরা নতুন কাউকে ক্যাফেটেরিয়ার দায়িত্ব দেওয়ার চেষ্টা করছি। আশা করছি ভর্তি কার্যক্রম শেষ হলেই ক্যাফেটেরিয়াও আগের মতো চালু হবে।

এএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]