মুক্তিপণের দাবিতে সুন্দরবনে ১০ জেলে অপহরণ


প্রকাশিত: ০২:২৮ পিএম, ২৯ জুন ২০১৬
ফাইল ছবি

বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের নারকেলবাড়ীয়া ও দুধমুখি খাল এলাকা থেকে দুই বনদস্যু বাহিনীর সদস্যরা মুক্তিপণের দাবিতে একটি ফিশিং ট্রলারসহ ১০ জেলেকে অপহরণ করেছে।

বুধবার সকালে বনদস্যু জিরো ও শান্ত বাহিনীর সদস্যরা জনপ্রতি ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণের দাবিতে এসব জেলেদের অপহরণ করে সুন্দরবনের গহীন অরণ্যে নিয়ে গেছে।

দুপুর থেকেই অপহৃত এসব জেলেদের উদ্ধারে অভিযানে নেমেছে কোস্টগার্ডের তিনটি ক্যাম্প ও সুন্দরবনে স্মার্ট পেট্রোলিং টিমের সদস্যরা। এনিয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় সুন্দরবনের তিন বনদস্যু বাহিনীর হাতে মুক্তিপণের দাবিতে ২৫ জেলে অপহরণ হয়েছে। অপহৃত এসব জেলেকে এখনো উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

বঙ্গোপসাগর উপকূলীয় মৎস্যজীবী সমিতির সভাপতি শেখ ইদ্রিস আলী জানান, বুধবার সকালে সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের নারকেলবাড়ীয়া ও দুধমুখি খাল এলাকায় মাছ আহরণকালে বনদস্যু জিরো ও শান্ত বাহিনীর সদস্যরা পৃথকভাবে হামলা চালিয়ে এফবি মনোয়ারা নামের একটি ফিশিং ট্রলারসহ মুক্তিপণের দাবিতে ১০ জেলেকে অপহরণ করে সুন্দরবনের গহীন অরণ্যে নিয়ে গেছে। এখন বনদস্যু জিরো বাহিনী টেলিটক (০১৫৩২৪৩২১৭৭) নম্বর থেকে অপহৃত জেলে পরিবারের কাছে জনপ্রতি ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করছে।

অপহৃত জেলেদের বাড়ি বাগেরহাটের মংলা ও বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে। এদের মধ্যে শাহজাহান, ইদ্রিস, সিরাজ, ফজলু, বেল্লাল, জাফর ও বাদুল কবিরাজ নামে সাত জেলের নাম জানা গেছে।

এর আগে মঙ্গলবার সকালে সুন্দরবনের শিবসা নদী থেকে বনদস্যুরা ১৫ জেলেকে মুক্তিপণের দাবিতে অপহরণ করে।

মংলা কোস্টগার্ড পশ্চিম জোনের অপারেশন অফিসার লে. ফরিদুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করে জাগো নিউজকে জানান, দুপুর থেকেই কোস্টগার্ডের তিনটি ক্যাম্প ও সুন্দরবনে স্মার্ট পেট্রোলিং টিমের সদস্যরা অপহৃত জেলেদের উদ্ধারে যৌথ অভিযান শুরু করেছে।

শওকত আলী বাবু/এআরএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]