পূরণের পথে ৩ লাখ মানুষের স্বপ্ন

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি নড়াইল
প্রকাশিত: ০৫:২৪ এএম, ২৭ নভেম্বর ২০১৭ | আপডেট: ০৫:৩১ এএম, ২৭ নভেম্বর ২০১৭

নড়াইল সদরের সঙ্গে কালিয়া উপজেলার সরাসরি যোগাযোগ স্থাপনে নড়াইলবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হতে চলেছে। কালিয়ার বারইপাড়া ঘাটে প্রমত্তা নবগঙ্গা নদীর ওপর ‘বারইপাড়া সেতু’ নির্মাণে টেন্ডার উন্মুক্ত করা হয়েছে।

নড়াইল সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু হেনা মোস্তফা জানিয়েছেন, নড়াইল-কালিয়া সড়কে নোয়াকগ্রাম ইউনিয়নের বারইপাড়া ও কালিয়া পৌরসভার পাঁচকাউনিয়া অংশে নবগঙ্গা নদীর উপর সেতু নির্মাণের টেন্ডার ৫ সেপ্টেম্বর উন্মুক্ত করা হয়েছে। ৪টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান টেন্ডারে অংশগ্রহণ করেছে। এখন চলছে যাচাই-বাছাইয়ের কাজ। যোগ্য প্রতিষ্ঠান কাজ পাবে।

৬৫১.৮৩ মিটার লম্বা এবং ১০.২৫ মিটার প্রস্থ বিশিষ্ট সেতুঠির নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ৭৫ কোটি টাকা। আগামী ২ মাসের মধ্যে কাজ শুরু হবে এবং ২০১৯ সালের জুন মাসের মধ্যে নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

জানা গেছে, মোট ১৪টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে কালিয়া উপজেলা গঠিত হলেও নবগঙ্গা নদীর কারণে ৮টি ইউনিয়ন ইলিয়াসাবাদ, জয়নগর, পওরডাঙ্গা, কলাবাড়িয়া, বাঐসোনা, সালামাবাদ, হামিদপুর খাসিয়াল ইউনিয়ন এবং কালিয়া পৌরসভার ২৩১টি গ্রামের সঙ্গে নড়াইল সদরের সরাসরি কোনো যোগাযোগ নেই। ফলে এই জেলার সামগ্রিক উন্নয়ন বরাবরই বাঁধাগ্রস্ত হয়েছে।

প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ এ পথে অফিস-আদালত, স্কুল-কলেজ, হাসপাতালসহ বিভিন্ন কাজে জেলা শহর ও অন্যান্য জেলায় যাতায়াত করলেও তাদের চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হয়। ব্যবসায়ী-কৃষক-মৎসজীবীরা পণ্য নিয়ে শহরে আসলে তাদের উৎপাদিত খরচ অনেক বেড়ে যায়।

Narail-Kalia-setu

এখনও ফায়ার সার্ভিস চালু না হওয়ায় কোথাও আগুনলাগলে জান-মাল রক্ষা করা অসম্ভব হয়ে ওঠে। বারইপাড়া ঘাটে ফেরি ব্যবস্থা চালু থাকলেও অনেকটা দায়সারা। নদীর পানি থেকে ঘাট প্রায় ৪০ ফুট উঁচু থাকায় নৌকা থেকে বিভিন্ন মালামাল ওঠানামা করাতে খুব কষ্ট হয়।

কালিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান খান শামিমুর রহমান বলেন, দেশ স্বাধীনের পর থেকে নবগঙ্গা নদীর বারইপাড়া পয়েন্টে সেতু নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছেন জনপ্রিনিধি এবং ভুক্তভোগী এলাকাবাসী। দ্রুত সেতুটি নির্মাণ হলে জনগণের চরম দুর্ভোগ লাঘব হবে এবং জেলার সার্বিক উন্নয়ন তরান্বিত হবে।

নড়াইল-১ (কালিয়া উপজেলা ও সদরের একাংশ) আসনের এমপি কবিরুল হক মুক্তি বলেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়নের অংশ হিসেবে বারইপাড়া সেতুটি নির্মিত হচ্ছে। সেতুটি নির্মিত হলে এ অঞ্চলের প্রায় ৩ লাখ মানুষের অর্থনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিকসহ যোগাযোগ ব্যবস্থার আমুল পরিবর্তন সম্ভব হবে।

হাফিজুল নিলু/এফএ/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :