দোয়া-দরুদ পড়ে পার হতে হয় বেইলি ব্রিজ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি লক্ষ্মীপুর
প্রকাশিত: ০৯:৫৭ পিএম, ১৬ এপ্রিল ২০১৮ | আপডেট: ০৯:৫৮ পিএম, ১৬ এপ্রিল ২০১৮

লক্ষ্মীপুরে তেরবেকি বেইলি ব্রিজের শিটগুলোতে মরিচা ধরে গর্ত হয়ে মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। সদর উপজেলার চররমনী, শাকচর ও চরুরহিতা ইউনিয়নের সঙ্গে জেলা শহরের সহজ যোগাযোগের মাধ্যম এ রুটটি।

প্রতিদিনই মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে হাজারো মানুষকে অস্থায়ী এই ব্রিজ দিয়ে পার হতে হয়। অন্ধকার নামলেই ঝুঁকি বেড়ে যায়। প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। বর্তমানে দোয়া-দরুদ পড়ে এই ব্রিজটি পার হতে হয় সবাইকে।

রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডে রহমতখালী খালের ওপরের এই ব্রিজের এক গর্তে পথচারীর পা আটকে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। এছাড়া প্রায়ই যাত্রীবাহী রিকশা, সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও পথচারীরা গর্তে পড়ে দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানায়, মজু চৌধুরীর হাট-লক্ষ্মীপুর সড়কটি তেরবেকি হয়ে জেলা শহরের দূরত্ব কম। এতে প্রতিদিনই এই রুট দিয়ে যাত্রীবাহী রিকশা, সিএনজি ও মালবাহী ট্রাকসহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচল করে। এটি জেলার ব্যস্ততম সড়কের একটি। কিন্তু গত কয়েক বছর থেকে ব্রিজের শিটগুলোতে মরিচা ধরে গর্ত হয়ে মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। কয়েকবার নতুন শিট দিয়ে মেরামত করা হলেও পুনরায় মরিচা ধরে গর্ত হয়ে গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মজু চৌধুরীর হাট থেকে লক্ষ্মীপুর সড়কটি সদর উপজেলার চররমনী, শাকচর ও চরুরহিতা ইউনিয়নের সঙ্গে জেলা শহরের সহজ যোগাযোগ মাধ্যম। প্রায় দেড় যুগ আগে ৬০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ১৪ ফুট প্রস্থে এটি নির্মাণ করা হয়। প্রতিদিনই কয়েকশ যানবাহন এই রুটে যাতায়াত করে। বেইলি ব্রিজটি দিয়ে এসব যানবাহন চলাচল করে। প্রায় ৫ বছর আগ থেকে ব্রিজের শিটগুলো মরিচা ধরে গর্তে পরিণত হয়। এছাড়া শিটগুলো সরে গিয়ে ফাঁকা হয়ে গেছে। এতে পথচারী, রিকশা, সিএনজি আটকে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হতে হচ্ছে। কয়েকবার ব্রিজটি মেরামত করেও কোনো লাভ হয়নি। সম্প্রতি কয়েকজন পথচারী ও মাছ ব্যবসায়ী গর্তের কবলে পড়ে আহত হয়েছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে লামচরী এলাকার মধ্যবয়সী এক নারী বলেন, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ব্রিজ পারাপার হতে হয়। কোন সময় সন্তানদের নিয়ে খালে পড়ে যাই সে ভয়ে, দোয়া-দরুদ পড়ে ব্রিজ পার হই।

ওই এলাকার বাসিন্দা তারেক উদ্দিন জাবেদ বলেন, জাতীয় সংসদ ও পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ-বিএনপির প্রার্থীরা ব্রিজটি নির্মাণ করে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কিন্তু নির্বাচিত হওয়ার পর তারা প্রতিশ্রুতি ভুলে গেছেন। অস্থায়ী ব্রিজটি দেড়যুগ আগে নির্মাণ করা হলেও এখন জরাজীর্ণ। যেকোনো সময় ধসে পড়ে প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে।

এ ব্যাপারে পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জাহিদুজ্জামান চৌধুরী রাসেল জানান, ব্রিজটিতে গর্ত হওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে মানুষকে চলাচল করতে হয়। ১-২ বছর পর পর ব্রিজটি মেরামত করা হলেও ঝুঁকি থেকে যায়। তবে নতুন করে ব্রিজ নির্মাণ করা হলে জনগণের উপকার হতো।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে লক্ষ্মীপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম বলেন, ব্রিজটি কিছুদিন পরপর মেরামত করা হচ্ছে। সেখানে ব্রিজটি নির্মাণের জন্য নতুন প্রকল্প তৈরি করে পাঠানো হবে। প্রকল্প অনুমোদন পেয়ে বরাদ্দ পেলে ব্রিজটি নির্মাণ করা হবে।

কাজল কায়েস/এএম/পিআর