বেনাপোল-পেট্রাপোল দিয়ে আমদানি-রফতানি বন্ধ

উপজেলা প্রতিনিধি বেনাপোল (যশোর)
প্রকাশিত: ০৯:৪২ পিএম, ১৫ জুলাই ২০১৮

ভারত থেকে আমদানি-রফতানিকৃত পণ্যের পরিমাপ (ওজন) করা নিয়ে কাস্টমস ও বিজিবির মধ্যে মতানৈক্য দেখা দেয়ায় রোববার দুপুর থেকে দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোল-পেট্রাপোল দিয়ে আমদানি-রফতানি বন্ধ হয়ে গেছে।

ফলে বন্দরের দুই দেশের উভয় পাশে শত শত ট্রাক পণ্য নিয়ে সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে আছে। এর মধ্যে রফতানিকৃত পোশাক শিল্পের উপকরণ, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কেমিক্যাল ও কাঁচামাল রয়েছে। আমদানি-রফতানি বাণিজ্য বন্ধ থাকায় মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ব্যবসায়ীরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, রোববার সকালে ভারত থেকে মাত্র ৩০ গাড়ি আমদানি পণ্য বাংলাদেশে প্রবেশের পর চেকপোস্ট কাস্টমস ও সিঅ্যান্ডএফ কর্তৃপক্ষ কাজ বন্ধ করে দেয়ায় আমদানি-রফতানি বন্ধ হয়ে যায়। স্বাধীনতার পর থেকে বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে যেসব পণ্য ভারত থেকে আমদানি-রফতানি হয় চেকপোস্টে তার ওজন নিয়ন্ত্রণ করতো কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। কাস্টমসের পাশাপাশি বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরাও রোববার সকাল থেকে ওসব পণ্যের ওজন তদারকি করার জন্য চেকপোস্টে তাদের কার্যক্রম শুরু করে।

ফলে কাস্টমসের কাজে বিজিবির হস্তক্ষেপে কাস্টমস তাদের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। এ নিয়ে স্থানীয় সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ও বন্দর ব্যবহারকারীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

বিজিবি বলছে, মন্ত্রণালয় থেকে আমদানি পণ্যের ওজন করার জন্য চেকপোস্ট ও টিটিআই গেটে কাস্টমসের পাশাপাশি দেখার দায়িত্ব নিলে কাস্টমস তাদের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়।

কাস্টমস বলছে, রাজস্ব সংক্রান্ত কার্যক্রম নিয়ম অনুযায়ী কাস্টমসের তদারকি করার কথা। আর বিজিবির সীমান্ত দিয়ে চোরাচালানি পণ্য নিয়ন্ত্রণের কথা থাকলেও বিজিবি আমদানি পণ্য দেখাশোনার ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করছে। ফলে ব্যবসায়ীরা কাজ বন্ধ করে দিলে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য বন্ধ হয়ে যায়।

বেনাপোল আমদানি-রফতানিকারক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি আমিনুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় ভারতের পেট্রাপোলে শত শত গাড়ি আমদানি পণ্য নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। যদি সময়মতো গাড়ি বন্দরে প্রবেশ করতে না পারে তবে ট্রাক প্রতি ২-৩ হাজার টাকা প্রতিদিন ডেমারেজ দিতে হবে। এছাড়া রোদ বৃষ্টিতে ভিজে পচনশীল পণ্যের ক্ষতি হবে।

তিনি বলেন, ফল, পেঁয়াজ, মাছসহ নানা ধরনের পচনশীল পণ্য বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে অপেক্ষা করছে।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক লতা জানান, আমদানি-রফতানি সংক্রান্ত বিষয়ে একমাত্র জাতীয় রাজস্ব বোর্ড নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। এর মধ্যে বিজিবির হস্তক্ষেপ সাংঘর্ষিক। এ ঘটনায় ব্যবসায়ীরা আমদানি-রফতানি বন্ধ করে দিয়েছে। সুষ্ঠু সমাধান না হলে ব্যবসায়ীরা এ পথে আমদানি-রফতানি করবে না বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে যশোর ৪৯ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে.কর্নেল আরিফুল হক বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ভারত থেকে আমদানিকৃত পণ্যের পরিমাপ নির্ধারণের জন্য চেকপোস্টে স্থাপিত কাস্টমসের উইনিং স্কেলে বিজিবি সদস্য নিয়োগ দেয়া হয়েছে এবং দায়িত্ব পালন করছে। অতিরিক্ত পণ্য আমদানি হচ্ছে বলেই এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ফলে সরকার সঠিক রাজস্ব পাবে। আমরা কাস্টমসের কোনো কাজে হস্তক্ষেপ করছি না।

বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমস কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা হারুনর রশিদ জানান, আমদানি-রফতানি বাণিজ্যে বিজিবির তদারকির বিষয়ে কাস্টমসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে তারা অফিস বন্ধ রেখেছেন।

এ বিষয়ে বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন বলেন, আমদানি-রফতানি ও রাজস্ব আদায় নিয়ন্ত্রণ করেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এনবিআর থেকে বিজিবিকে এমন কোনো নির্দেশ দেয়া হয়নি। তারপরও তারা চেকপোস্ট কাস্টমসের উইনিং স্কেলে আমদানিকৃত পণ্যের পরিমাপের দায়িত্ব পালন করছেন। এর প্রতিবাদে সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ীরা বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি বন্ধ করে দিয়েছেন। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা চলছে।

মো. জামাল হোসেন/এএম/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :