পৌরসভার ১৫০ বছর পূর্তিতে শেরপুরে সাজ সাজ রব

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি শেরপুর
প্রকাশিত: ০২:৩৭ পিএম, ১৬ নভেম্বর ২০১৮

ভারতের মেঘালয় সীমান্তবর্তী জেলা শেরপুর। জেলার পৌরসভার ১৫০ বছর পূর্তিতে শহরে সর্বত্র সাজ সাজ রব বিরাজ করছে। শহরজুড়ে তোরণ, রাস্তার দু‘পাশে নানা রঙের পতাকা ও ফেস্টুন-ব্যানারে শোভাবর্ধন এবং ভবন-মার্কেটগুলোতে আলোকসজ্জায় এখন জলমল করছে শেরপুর। পৌরসভার ১৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে ৬ মাস ব্যাপী নানা কর্মসূচির আয়োজন করেছে পৌর কর্তৃপক্ষ।

শনিবার (১৭ নভেম্বর) সকাল ১০টায় শহীদ দারোগ আলী পৌরপার্ক মাঠে এ উপলক্ষে দুই দিনব্যাপী উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে শেরপুর প্রেস ক্লাবে আজ শুক্রবার সকালে সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মতবিনিময় সভায় পৌরসভার মেয়র গোলাম মোহাম্মদ কিবরিয়া জানান, ১৮৬৮ সালে প্রতিষ্ঠিত শেরপুর পৌরসভার ১৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে ৬ মাসব্যাপী নানা কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- নান্দনিক স্থাপনা পৌরসভার পুরাতন ভবনটিকে সংস্কার করে পৌর যাদুঘর তৈরি, পৌরপার্ক মাঠের পাশে ৫তলার একটি আধুনিক সিটি সেন্টার ভবন নির্মাণ।

পৌরসভার দেড়শ’ বছর পূর্তি উৎসবের অংশ হিসেবে ইতোমধ্যে রাতে শহরের ময়লা-আবর্জনা অপসারণ কাজ শুরু হয়েছে। পুলিশ ও প্রশাসনের সহায়তায় শহরের ইজিবাইক, যানজট নিয়ন্ত্রণ ও শৃঙ্খলা আনয়ন এবং শহরের ভেতরে গবাদি পশুর অবাধ বিচরণ বন্ধ করা হয়েছে। একটি ‘ক্লিন এবং গ্রিন’ (পরিচ্ছন্ন ও সবুজ) শহর হিসেবে শেরপুরকে গড়ে তোলার কাজ চলছে।

পৌরসভার মেয়র লিটন জানান, প্রধানমন্ত্রীর এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়কারী মো. আবুল আলাম আজাদ পৌরসভার দেড়শত বছর পূর্তি উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সরকারের সচিব পর্যায়ের কর্মকর্তা, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং দেশবরেণ্য ব্যক্তিরা উপস্থিত থাকবেন।

দুই দিনব্যাপী উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে র্যালি, আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ছাড়াও পৌর এলাকার ৫০ ব্যক্তিকে গুনীজন সংবর্ধনা প্রদান করা হবে। এসব গুনীজনদের মধ্যে রয়েছেন- বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, বরেণ্য শিক্ষাবিদ, সাংস্কৃতিক কর্মী-সংগঠক, সাবেক পৌর চেয়ারম্যান ও মেয়র। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে মনোমুগ্ধকর আতশবাজি উৎসব করা হবে।

হাকিম বাবুল/আরএস/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :