বাঙ্গি বেচে বোনের জন্য ঈদের জামা কিনতে চায় আসিফ

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি ঈশ্বরদী (পাবনা)
প্রকাশিত: ০১:০১ পিএম, ০১ জুন ২০১৯

সারা বছর ঘাম ঝরিয়ে দু’বেলা খেয়ে কোনো রকমে সংসার চলে। তাই উৎসবে সন্তানদের একটু শখ আহ্লাদ পূরণ করাটা অনেক হতদরিদ্র বাবার জন্যই বোঝা। এসব ক্ষেত্রে পরিবারের সন্তানরা নিজেরাই দায়িত্ব তুলে নেয় নিজ কাঁধে। এমনি এক শিশু পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার আসিফ।

আসিফ ঈশ্বরদীর মাজদিয়া মাদরাসা পাড়া গ্রামের কৃষক কুদ্দুস আলীর ছেলে। স্থানীয় একটি মাদরাসায় পড়ে সে।

হালকা-পাতলা গড়নের আসিফের আশা ঈদে সে একটি নতুন জামা তার বোনকে কিনে দেবে। সেজন্য সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত প্রচণ্ড গরম উপেক্ষা করে একটি ঝুড়িতে কয়েকটি বাঙ্গি নিয়ে বসে আছে শিশুটি। এগুলো বিক্রি হলে তার ছোট বোনের জন্য একটি জামা কেনা হবে এমনটাই আশা তার।

ঈশ্বরদী রেলওয়ে জংশন স্টেশনের ওভারব্রিজ মোড়ে শুক্রবার দুপুরে তাকে দেখতে পাওয়া যায়। প্রখর রোদে বাঙ্গি নিয়ে বসে থাকার কারণ জানতে চাইলে ছোট্ট আসিফ জানায়, ঈদে সবার বোন নতুন জামা পরে বের হয়। তার বোনের নতুন জামা নেই। তাই ছোট বোন ইতির জন্য নতুন জামা কেনার আশায় বাঙ্গি নিয়ে বিক্রি করতে এসেছে সে।

আসিফ জানায়, তারা দুই বোন, এক ভাই। বড় বোনের বিয়ে হয়ে গেছে। ছোট বোন ইতি নতুন জামার জন্য বায়না ধরেছে। তাই তার বায়না মেটাতে সকালে মাদরাসা ছুটির পর বাঙ্গি বিক্রি করতে এসেছে।

আসিফ প্রতিটি বাঙ্গি ১০ টাকা থেকে ১৫ টাকা দরে বিক্রি করছে। কিন্তু বাঙ্গি বেচে বোন ও নিজের জন্য নতুন জামা কিনতে পারবে তো আসিফ? আর যদি না পারে তাহলে কি আসিফ ও তার বোন ঈদের আনন্দ করতে পারবে? এই প্রশ্নের উত্তর হয়তো জানা নেই আসিফেরও।

আলাউদ্দিন আহমেদ/এফএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]