শিশুকে একা পেয়ে ধর্ষণ, প্রতিবেশী চাচা গ্রেফতার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নেত্রকোণা
প্রকাশিত: ০৬:০৬ পিএম, ১৫ জুন ২০১৯
প্রতীকী ছবি

নেত্রকোণার আটপাড়ায় এক শিশুকে (১০) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার দুপুরের দিকের এ ঘটনায় রাতেই মেয়েটির মা বাদী হয়ে আটপাড়া থানায় নারী ও শিশু নিযাতন দমন আইনে মামলা করেছেন।

পুলিশ অভিযান চালিয়ে শনিবার ভোরে জানু মিয়া (৫৮) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে। ধর্ষণের শিকার মেয়েটি বর্তমানে নেত্রকোণা সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছে।

শিশুটির পরিবার ও পুলিশের ভাষ্য মতে, ওই শিশুটি স্থানীয় একটি মাদরাসায় লেখাপড়া করে। শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে সে তার পাশের বাড়ির জানু মিয়ার ঘরে যায়। জানু মিয়া সম্পর্কে শিশুটির চাচা হন। এ সময় বাড়িতে লোকজন ছিল না। জানু মিয়া শিশুটিকে একা পেয়ে ঘরের দরজা বন্ধ করে দেন। পরে জোর করে তাকে ধর্ষণ করেন।

শিশুটির চিৎকারে পাশের বাড়ির কয়েকজন বাসিন্দা এসে ঘরের সামনে জড়ো হন। তারা দরজা খুলে শিশুটিকে উদ্ধার করেন। পরে শিশুটির মা ও বাকপ্রতিবন্ধী বাবা তাকে নেত্রকোণা আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন।

এ ঘটনায় ওইদিন রাত ৮টার দিকে মেয়েটির মা বাদী হয়ে আটপাড়া থানায় জানু মিয়াকে আসামি করে মামলা করেন। মামলার পর শনিবার ভোর পৌনে ৫টার দিকে নেত্রকোণা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. শাহজাহান মিয়ার নেতৃত্বে পুলিশ অভিযান চালিয়ে জানু মিয়াকে আটপাড়া থেকে গ্রেফতার করে।

শিশুটির মা সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমার ছোট মাইয়াডারে জানু মিয়া সর্বনাশ কইরা ফালছে। আমার নিষ্পাপ মাইয়া ওর কী ক্ষতি করছিল। মাইডারে নিয়া এহন হাসপাতালে আছি। প্রচুর রক্ত গেছে, খুবই কষ্ট হইতাছে। আমি এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

নেত্রকোণা সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা মো. একরামুল হক শনিবার বিকেলে পৌনে ৩টার দিকে বলেন, ‘শিশুটিকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। স্বাভাবিক হতে আরও কিছুটা সময় লাগবে।’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. শাহজাহান মিয়া বলেন, ‘আমি হাসপাতালে গিয়ে শিশুটি ও তার পরিবারকে মানসিকভাবে কাউন্সিলিং করে এসেছি। গ্রেফতার হওয়া জানু মিয়াকে দুপুরের দিকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’

কামাল হোসাইন/বিএ/এমকেএইচ

আপনার মতামত লিখুন :