স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণ : ধর্ষকের যাবজ্জীবন

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফেনী
প্রকাশিত: ০৫:০৯ পিএম, ২৫ জুন ২০১৯

ফেনীর সোনাগাজীতে সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১৩) অপহরণ করে আটকে রেখে ধর্ষণের দায়ে একজনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। এইক সঙ্গে তার পাঁচ লাখ টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে।

এছাড়া এ মামলায় আরও চারজনের ১৪ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড ও এক লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

অন্যদিকে অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় পাঁচজনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) দুপুরে ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন টাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদ এ রায় প্রদান করেন।

রায়ে জরিমানার অর্থ আইন মোতাবেক আদায় করে ভিকটিমকে প্রদান করার জন্য ফেনীর বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি হলেন- আবু বক্কর ছিদ্দিক ওরফে সাগর। ১৪ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- জাহাঙ্গীর আলম, মেজবাহ উদ্দিন পলাশ, বায়েজিদ ফয়সাল ও রিয়াদ ওরফে রিয়াদ হোসেন।

খালাসপ্রাপ্তরা হলেন- বিবি কাউছার, আবু নাছের সোহাগ, ইকবাল হোসেন সুমন, আলা উদ্দিন আলো এবং মো. মাসুদ।

রায় ঘোষণার সময় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি সাগর ছাড়া অন্য সব আসামি আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।

ফেনীর জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি হাফেজ আহাম্মদ জানান, আসামি আবু বক্কর ছিদ্দিক ওরফে সাগর আগে থেকেই স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে ওই ছাত্রীকে উত্যক্ত ও নানা কটূক্তি করত। ২০১৩ সালের ২৫ মে ওই ছাত্রী প্রাইভেট পড়ার জন্য বাড়ি থেকে স্কুলের দিকে যাচ্ছিল। সেসময় আসামি সাগরের নেতৃত্বে অন্য আসামিরা উপজেলার চর গণেশ চৌধুরী লেন রাস্তার মোড় থেকে তাকে টেনে-হেঁচড়ে একটি মাইক্রোবাসে তুলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়।

ওই ঘটনায় ছাত্রীর বাবা বেলায়েত হোসেন বাদী হয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

সোনাগাজী থানা পুলিশ অপহরণের তিন দিন পর বান্দরবান জেলার ইসলামপুর লাঙ্গিপাড়ার একটি পাহাড়ের ওপর পরিত্যক্ত ঘর থেকে ওই স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করে। ওই ঘরে আটকে রেখে সাগর তাকে ধর্ষণ করে।

ঘটনার তদন্ত শেষে সোনাগাজী থানার তৎকালীন উপ-পরিদর্শক (এসআই) স্বপন কুমার বড়য়া ওই বছরের ১২ জুলাই সাগরসহ ১০ জন আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত মঙ্গলবার এই রায় দেন।

রাশেদুল হাসান/এমবিআর/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :