ডিবি পরিচয়ে প্রবাসীকে অপহরণ, মোটরসাইকেলও নিয়ে গেছে

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি ভৈরব (কিশোরগঞ্জ)
প্রকাশিত: ০৯:৪৪ পিএম, ০৭ আগস্ট ২০১৯
প্রতীকী ছবি

ভৈরবে ডিবি পরিচয়ে মোটরসাইকেলসহ এক প্রবাসী যুবককে অপহরণের ঘটনা ঘটেছে। অপহৃত যুবকের নাম সৌরভ মিয়া (২২)।

তিনি ভৈরব উপজেলার মধ্যেরচর গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে। গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টায় শহরের ভৈরবপুর উত্তরপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় প্রবাসী যুবকের মামা মো. সাদ্দাম বুধবার দুপুরে ভৈরব থানায় একটি অভিযোগ করলে পুলিশ ইব্রাহিম নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে।

জানা যায়, প্রবাসী ওই যুবক আড়াই বছর কুয়েত থাকার পর কিছুদিন আগে ছুটিতে বাড়ি আসে। বাড়ি এসে বিয়ে করার পর ছুটিতে বেকার না থেকে তার মামার শহরের ভৈরবপুর উত্তরপাড়া এলাকায় একটি দোকানে কাজ করছিল। মঙ্গলবার রাত ৯টায় একটি মাইক্রোবাসে সাদা পোশাকধারী ৫-৬ জন লোক ডিবির পরিচয়ে ওই দোকানে আসে। এসময় তার মামা বাইরে থেকে এসে দোকানে এ ঘটনা দেখতে পান। একপর্যায়ে ডিবি পরিচয়ধারী এক লোক তার মামা সাদ্দামকে বলে তুই মাদক ব্যবসা করিস। এ কথা শুনে তার মামা (সাদ্দাম) দৌড়ে পালিয়ে গেলেও ভাগনে সৌরভকে দোকান থেকে তুলে নিয়ে যায় এবং সাদ্দামের মোটরসাইকেলটিও নিয়ে যায় তারা।

পরে ভৈরব থানা পুলিশকে ঘটনাটি জানিয়ে থানায় একটি অভিযোগ করা হয়। এখন পর্যন্ত অপহৃত যুবক সৌরভসহ মোটরসাইকেলটি পুলিশ উদ্ধার করতে পারেনি। বাদী সাদ্দামের অভিযোগ, নরসিংদী এলাকার পাভেল নামের এক যুবক তার বাড়ির পাশে ভাড়া থাকে। সে ষড়যন্ত্র করে ডিবি পুলিশ বা কোনো প্রতারক দলের সদস্যদের দিয়ে এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে। এদিকে ঘটনার পর পর পাভেল পালিয়ে গেলেও তার বাবা ইব্রাহিমকে ভৈরব থানা পুলিশ আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

অপহৃত যুবকের মামা মো. সাদ্দাম জানান, ‘আমি বা আমার ভাগনে কখনই মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত নয়। ডিবি পরিচয়ে কারা আমার ভাগনেসহ মোটরসাইকেলটি নিয়ে গেছে বুঝতে পারছি না। তবে প্রতারক দল আমার মোবাইলে বার বার ফোন দিয়ে বলছে মোটা অংকের টাকা দিলে সৌরভসহ মোটরসাইকেলটি ফেরত দিয়ে দেবে। ঘটনাটি পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে বলে তিনি জানান।’

এ ঘটনায় ভৈরব থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক আবদুস সালাম জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর বিভিন্ন কৌশলে অপহৃত যুবকসহ মোটরসাইকেলটি উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। বাদীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পাভেলের বাবাকে আটক করেছি। তবে ধারণা করা হচ্ছে, কোনো প্রতারক দল ঘটনাটি ঘটিয়েছে।

আসাদুজ্জামান ফারুক/এমএএস/এমএস