বিএনপির কমিটি নিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় ইউপি সদস্য নিহত

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নওগাঁ
প্রকাশিত: ১২:৩৪ পিএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯
ফাইল ছবি

নওগাঁর নিয়ামতপুরে ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় ইউপি সদস্য ওয়াহেদ আলী নিহত হয়েছেন। সোমবার সকাল ৮টার দিকে রাজশাহীর পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় আরেক ইউপি সদস্য জাকির হোসেনসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে। গতকাল রোববার বিকেলে উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের খঁড়িবাড়ি বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ওয়াহেদ আলী বাহাদুরপুর ইউনিয়নের ৭নম্বর ওয়ার্ড মেম্বার ও ওয়ার্ড বিএনপির সদস্য এবং করিমপুর গ্রামের তাছির আলীর ছেলে। ঘটনার পর থেকে এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নিয়ামতপুর উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নে নওগাঁ-১ (নিয়ামতপুর-পোরশা ও সাপাহার উপজেলা) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ডা. সালেক চৌধুরী ও জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমানের দুটি গ্রুপপ ছিল। রোববার বিকেল ৫টার দিকে বাহাদুরপুর ইউনিয়নের খঁড়িবাড়ি বাজার সেডে ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি ভেঙে দিয়ে আহ্বায়ক কমিটি গঠন নিয়ে আলোচনা চলছিল। আলোচনা সভায় ডা. সালেক চৌধুরীর কর্মী সমর্থকরা হেলমেট পরে লোহার রড ও লাঠিসোটা নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়।

এতে মোস্তাফিজুর রহমানের সমর্থক ইউপি সদস্য ওয়াহেদ আলীর মাথায় লোহার রড দিয়ে আঘাত করা হলে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এ সময় তার কান ও নাক দিয়ে রক্ত ঝরছিল। স্থানীয়রা তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) নেয়। অবস্থা খারাপ হওয়ায় সেখান থেকে ওয়াহেদ আলীকে অনত্র নিতে বলা হয়। এরপর রাতেই রাজশাহীর পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নেয়া হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার সকাল ৮টার দিকে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় বাহাদুরপুর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ড মেম্বার জাকির হোসেনসহ উভয় পক্ষের কমপক্ষে ১০ জন আহত হন।

বাহাদুরপুর ইউনিয়নের আরেক মেম্বার বিএনপি সমর্থক ওয়াজেদ আলী বলেন, বিকেলে আমরা আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন। এ সময় ডা. সালেক চৌধুরীর কর্মী সমর্থকরা হেলমেট পরে লোহার রড ও লাঠিসোটা নিয়ে এসে আমাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। মেম্বার ওয়াহেদ আলীর মাথায় লোহার রড দিয়ে আঘাত করা হলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী নেয়া হয়।

এ বিষয়ে ডা. সালেক চৌধুরী বলেন, আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর রাজশাহীতে বিভাগীয় আলোচনা হওয়ার কথা। এর আগে জেলায় কোথাও কোনো ধরনের আলোচনা সভা হওয়ার কথা না। কিন্তু তারপরও খঁড়িবাড়িতে আলোচনা সভা হয়েছে। যা আমার জানা ছিল না। ওই সময় আমি চেম্বারে বসে রোগী দেখছিলাম। পরে শুনলাম মোস্তাফিজুর রহমান চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার গোমস্তাপুর থেকে শতাধিক গুন্ডা ভাড়া করে নিয়ে এসে পরিকল্পিতভাবে হামলা করে। আমারও দুইজন কর্মীর অবস্থা খারাপ, তারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

তবে জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

নিয়ামতপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সামছুল আলম বলেন, ইউনিয়ন বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলা আহত মেম্বার ওয়াহেদ আলী চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। ডা: সালেক চৌধুরী গতকাল রোববার থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন বলেও ওসি জানান।

আব্বাস আলী/আরএআর/পিআর