ইউএনওকে দেখে ২৫০ টাকার পেঁয়াজ ১৫০, বেশি করে কিনলেন সবাই

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মাদারীপুর
প্রকাশিত: ০৮:৩৮ পিএম, ১৮ নভেম্বর ২০১৯

মাদারীপুরে পেঁয়াজের বাজারে অভিযান চালিয়ে পাঁচ ব্যবসায়ীকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এতে বাজারে পেঁয়াজের দাম কেজিতে ১০০ টাকা কমে যায়। এ অবস্থায় পেঁয়াজের দোকানগুলোতে হুমড়ি খেয়ে পড়েন সাধারণ জনতা। সুযোগ বুঝে কম দামে পেঁয়াজ কিনে বাসায় ফিরে যান তারা।

সোমবার (১৮ নভেম্বর) জেলার রাজৈর উপজেলার টেকেরহাট বন্দরের পাইকারি বাজারে এ ঘটনা ঘটে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের খবর তাৎক্ষণিকভাবে খুচরা বাজারেও ছড়িয়ে পড়ে। এতে ২৫০ টাকা থেকে নেমে ১৫০ টাকায় বিক্রি হয় পেঁয়াজ। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছেন রাজৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোহানা নাসরিন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, সোমবার সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহানা নাসরিনের নেতৃত্বে টেকেরহাট বন্দরের পাইকারি বাজারে অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় পাইকারি বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ২৩০-২৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছিল। বিষয়টি হাতেনাতে ধরে ফেলেন ইউএনও।

সেই সঙ্গে বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রির দায়ে ব্যবসায়ী মো. খোকন খালাশীকে পাঁচ হাজার, শফিকুলকে পাঁচ হাজার, রিপনকে পাঁচ হাজার, চুন্নুকে তিন হাজার ও পলাশকে তিন হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এরপরই দ্রুত পেঁয়াজের দাম কমে ১৫০ টাকায় বিক্রি শুরু হয়।

এ খবর ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে খুচরা বাজারেও পেঁয়াজের দাম কমে যায়। এই সুযোগে ক্রেতারা পেঁয়াজ কিনতে হুমড়ি খেয়ে পড়েন দোকানে। কেউ পাঁচ কেজি আবার কেউ দুই কেজি করে পেঁয়াজ কিনে বাসায় ফিরে যান। ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের ভয়ে বর্তমানে ১৫০-১৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ।

টেকেরহাটের বাসিন্দা রুহুল আমিন বলেন, ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের পর ১৫০ টাকা কেজিতে দুই কেজি পেঁয়াজ কিনেছি আমি। বাজারে পেঁয়াজের কোনো অভাব নেই। সিন্ডিকেট করে দাম বাড়ানো হয়েছে। প্রথম থেকে এভাবে যদি বাজার মনিটরিং করা হতো তাহলে পেঁয়াজের দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকতো। উপজেলা প্রশাসনকে সাধুবাদ জানাই।

এ কে এম নাসিরুল হক/এএম/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]