সিংড়ায় পরিবেশ বান্ধব ই-রিক্সা ‘চলো’ পরিবহন উদ্বোধন

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নাটোর
প্রকাশিত: ০৮:২৮ পিএম, ২৯ নভেম্বর ২০১৯

শহরের পরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়ন, আধুনিকীকরণ ও গতিশীলতা বৃদ্ধির লক্ষে নাটোরের সিংড়া পৌরসভায় ১০টি পরিবেশ বান্ধব ই-রিক্সা ‘চলো’ পরিবহন ও দুটি অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসের উদ্বোধন করা হয়েছে।

শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টায় পৌরসভা প্রাঙ্গণে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি নিজে ই-রিক্সা (অটো রিকসা) চালিয়ে উদ্বোধন করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সিংড়া পৌরসভার মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌস, টুমি জিআইজেড এর কনসালটেন্ট মাইকেল ফিংক, টেকনিক্যাল অ্যাডভাইজার সাবাহ শামসী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) আকরামুল হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সিংড়া সার্কেল জামিল আক্তার প্রমুখ।

Natore-E-rickshaw-project-3

সিংড়া পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, পৌরসভা পাবলিক ট্রান্সপোর্ট ও অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস টুমি গ্লোবাল আরবান মোবিলিটি চ্যালেঞ্জ ২০১৮ তে মোট ১৩০টি শহর তাদের প্রস্তাবনা দাখিল করে। যার মধ্যে বাংলাদেশে একমাত্র সিংড়া পৌরসভা এ প্রকল্পটি অনুমোদন লাভ করে ৩য় স্থানে বিজয়ী হয়। সিংড়া শহরকে দূষণমুক্ত ও পৌরবাসীর জরুরি স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতে দুটি অ্যাম্বুলেন্স সেবার পাশাপাশি ১০টি পরিবেশ বান্ধব ই-রিক্সা ‘চলো’ পরিবহন প্রদান করেছে জার্মানির জিআইজেড প্রকল্প।

চলো পরিবহনের দুটিতে ৮ জন যাত্রী, ৪টিতে ৪ জন যাত্রী ও ৪টিতে ৩ জন যাত্রী যাতায়াত করতে পারবে। এছাড়া অ্যাম্বুলেন্স দুটিতে রোগীসহ ৩ জন যাত্রী যাতায়াত সুবিধা পাবে। আর পৌরসভার হটলাইনে ফোন করলেই দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা বিভিন্ন নাগরিক সেবা প্রদান করবে এ চলো পরিবহন।

Natore-E-rickshaw-project-3

অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, দূষণমুক্ত তথা জলবায়ু-বান্ধব শহর গড়ে তোলার জন্য বিশ্বের সকল দেশ একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। যানবাহন হলো অন্যতম বৃহত্তম ক্ষেত্র যা বেশি মাত্রার কার্বণ নিঃসরণের জন্য দায়ী।

জার্মানীর জিআইজেড এর টুমি প্রকল্পের আওতায় টেকসই ও স্বাস্থ্য সম্মত যানবাহন ব্যবস্থার কার্যক্রম হাতে নিয়েছে।

তিনি এ প্রকল্পের প্রশংসা করে বলেন, সিংড়া একটি ছোট শহর হলেও এ শহরকে সুন্দর এবং দৃষ্টি নন্দন করে গড়ে তোলার জন্য যা যা করণীয় সব কিছুই করা হবে।

রেজাউল করিম রেজা/এমএএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]