১০ গ্রামের মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি সিরাজগঞ্জ
প্রকাশিত: ০১:৩৯ পিএম, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০

সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার বাঘুটিয়া ইউনিয়নের রেহাইপুখুরিয়া-বিনানই সড়কের চর নাকালিয়া পূর্বপাড়া খালের ওপর নির্মিত নড়বড়ে বাঁশের সাঁকোটি এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো দিয়ে পারাপার হচ্ছেন ১০ গ্রামের প্রায় ২০ হাজার মানুষ।

দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারের অভাবে সেতুটি এখন আর এলাকাবাসীর কোনো কাজেই আসছে না। বর্ষায় সেতুটির নিচ দিয়ে নৌকায় পাড় হতে হয়। আর শুষ্ক মৌসুমে এ খালে পানি শুকিয়ে গেলে হেঁটে পাড় হতে হয়। সেতুটির বাশঁ-খুটি পচে নষ্ট হয়ে গেছে। অনেক স্থানের পচা বাঁশ খসে পড়েছে। সেতুতে উঠলে থরথর করে কাঁপতে থাকে সেতু। ফলে এ সড়ক দিয়ে যানবহন তো দূরের কথা মানুষজনই চলাচল করতে পারে না।

স্থানীয়দের অভিযোগ, এই খালের ওপরে একটি স্থায়ী সেতু নির্মাণের দাবি দীর্ঘদিনের। বারবার তাগিদ দেয়া হলেও এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না।

স্থানীয় চর নাকালিয়া গ্রামের নূর আলম, রওশন আলী মাস্টার, আনোয়ার হোসেন ও জুলহাস মোল্লা জানান, ৫ কিলোমিটার দৈর্ঘে্যর এ সড়কটির চর নাকালিয়া খালের ওপর নির্মিত বাঁশের সাঁকোটি নড়বড়ে হয়ে যাওয়ায় এ সড়ক দিয়ে কোনো মালামাল পরিবহন করা যায় না। জমি থেকে ফসল আনতে হয় মাথায় করে। এছাড়াও ঘরবাড়ি ও স্যানিটারি সামগ্রী পরিবহন কষ্ট সাধ্য হওয়ায় অনেকের সামর্থ থাকলেও বাড়িতে ভালো ঘর ও স্যানিটারি ল্যাট্রিন তৈরি করতে পারে না। ফলে তাদের বাধ্য হয়ে কাঁচা পায়খানায় কাজ সারতে হয়। এ কারণে এলাকার পরিবেশ হুমকির মধ্য পড়েছে। শিশুদের নানা অসুখ লেগেই আছে।

চর নাকালিয়া খালের ওপর সেতুর অভাবে এ গ্রামসহ আশপাশের অন্তত ১০টি গ্রামের প্রায় ২০ হাজার মানুষকে চরম কষ্ট পোহাতে হয়। এখানে জরুরি ভিত্তিতে একটি কংক্রিট সেতু নির্মাণ খুবই জরুরি। এছাড়া বিনানই নদীর ওপর নির্মাণাধীন কংক্রিট সেতুটির নির্মাণ কাজ দ্রুত শেষ হলে ঢাকার সেঙ্গ চৌহালী সদরের সড়ক যোগাযোগ উন্নত হবে। পাশাপাশি ঢাকায় যাতায়াতের জন্য প্রায় ৫০ কিলোমিটার পথ কমে যাবে। এতে চৌহালীর মানুষ সকালে ঢাকায় পৌঁছে কাজ সেরে আবার বিকেলে বাড়ি ফিরতে পারবে। এতে তাদের যাতায়াত খরচও অর্ধেক কমে যাবে।

Sirajgonj-01

স্থানীয়রা জানান, এলাকাবাসী দীর্ঘদিন ধরে এ খালের ওপর একটি কংক্রিট সেতু নির্মাণের দাবি জানালেও স্থানীয় প্রশাসনের এদিকে নজর না থাকায় তাদের দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। তারা অবিলম্বে এখানে একটি কংক্রিট সেতু নির্মাণের জোর দাবি জানান।

এ বিষয়ে বাঘুটিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য (মেম্বার) আব্দুস সাত্তার জানান, এ খালের ওপর বাঁশের সাঁকোটি ২০১৮ সালের বর্ষায় নির্মাণ করা হয়। দীর্ঘ দুই বছরেও কোনো সংস্কার না করায় সাঁকোটি নড়বড়ে হয়ে গেছে। ফলে এখন আর এ সাঁকো দিয়ে পাড় হওয়া যায় না। এখানে একটি কংক্রিট সেতু নির্মাণের অভাবে এলাকাবাসী খুবই দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। এলাকাবাসীর এই দুর্ভোগ লাঘবে এখানে জরুরি ভিত্তিতে একটি কংক্রিট সেতু নির্মাণ প্রয়োজন। কিন্তু স্থানীয় প্রশাসনের এদিকে নজর নেই। তাদের বারবার বলেও কোনো কাজ হয়নি।

এ বিষয়ে বাঘুটিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল কাহ্হার সিদ্দিকী জানান, চর নাকালিয়া খালের ওপর একটি কংক্রিট সেতু নির্মাণের দাবি জানানো হয়েছে। কিন্তু খালের প্রশস্ততা বেশি হওয়ায় প্রায় ৮০ ফুট দৈর্ঘ্য ওপরে সেতু নির্মাণ প্রয়োজন। তাই সেতুটি নির্মাণ দেরি হচ্ছে। তবে আশা করছি এ বছরের মধ্যেই হয়ে যাবে।

এ বিষয়ে চৌহালী উপজেলার ভারপ্রাপ্ত প্রকৌশলী সাখাওয়াত হোসেন জানান, বিষয়টি আমাদের নজরে আছে। সেতু নির্মাণে কোনো বরাদ্দ না থাকায় সেখানে সেতু নির্মাণ সম্ভব হচ্ছে না। তারপরও একটি প্রস্তাব পাঠানোর প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। প্রস্তাবটি পাস হলেই সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হবে।

এ বিষয়ে চৌহালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেওয়ান মওদুদ আহাম্মেদ বলেন, ওই স্থানে অচিরেই একটি কংক্রিট সেতু নির্মাণের পদক্ষেপ নেয়া হবে। এজন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি চলছে।

ইউসুফ দেওয়ান রাজু/আরএআর/পিআর