ঈদের দিন ৪০০ শ্রমিক খাওয়ালেন চেয়ারম্যান

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)
প্রকাশিত: ০৪:২৪ এএম, ২৬ মে ২০২০

দেশের উত্তরাঞ্চল থেকে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে আসা খেটে খাওয়া দিনমজুর শ্রমিকরা ঈদে বাড়ি যেতে পারেনি। এদিনে নেই তাদের মজুরের কাজ। তাই কর্মহীন হয়ে মির্জাপুর উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজার এলাকায় শতশত দিন মজুর বেকার হয়ে মানবেতর দিন কাটাচ্ছেন।

ঈদের দিন সোমবার দুপুরে চারশ দিনমজুরকে খিচুড়ী মাংস খাওয়ালেন মির্জাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেবিষয়ক সম্পাদক ও আজগানা ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম শিকদার এবং যুবলীগ নেতা শেখ জসিম উদ্দিন ও রঞ্জন দত্ত্ব।

চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম শিকদার ঈদের দিন দুপুরে তিন শতাধিক কর্মহীন দিনমজুরকে তার বাড়িতে দুপুরে খিচুড়ী মাংস খাওয়ান। এ সময় আজগানা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোক্তার আলী সিদ্দীকীসহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারি কমিশনার (ভুমি) কার্যালয় ভবনের নিচে আশ্রয় নেয়া ১৩০ জন দিনমজুরকে উপজেলার বহুরিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক শেখ জসিম উদ্দিন ও যুবলীগ নেতা ব্যবসায়ী রঞ্জন দত্ত্ব দুপুরে পোলাও মাংস খাওয়ান।

বেকার থাকা কর্মহীন কয়েকজন দিনমজুর জানান, সারাদেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। প্রতিবছর বোরো মৌসুমে তাদের আয়ের সময়। ঝুঁকি নিয়েই কাজ করতে এসেছিলাম৷ কিন্তু কাজ নেই। গাড়ি না চলায় ঈদে বাড়িও যেতে পারিনি। কোন জায়গা থেকে খাবারও পায়নি। একদিকে করোনা আবার ঈদ। কেউ কারো বাড়িতে যেতেও দিচ্ছে না। এই সময় তাদের কাজ না থাকায় না খেয়েই রাস্তায় দিন পার করছিল। ঈদের দিন সোমবার দুপুরে চেয়ারম্যান ও কয়েকজন যুবক তাদের দুপুরের খাবার দেন বলে তারা জানান।

যুবলীগ নেতা শেখ জসিম উদ্দিন ও রঞ্জন দত্ত্ব জানান, খেটে খাওয়া কয়েকজন দিনমজুর তাদের জানান, তারা না খেয়ে আছেন এবং রান্নার জন্য পাত্র চান। পরে তারা নিজেরাই পোলাও মাংস রান্না করে ১৩০ জন দিনমজুরকে খাওয়ান বলে জানান।

এস এম এরশাদ/এমআরএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]