হঠাৎ বন্যায় চাঁদপুর শহর প্লাবিত

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি চাঁদপুর
প্রকাশিত: ০১:১৯ এএম, ০৬ আগস্ট ২০২০

হঠাৎ করে বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে চাঁদপুর শহর। একইসঙ্গে জেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে কয়েক হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

বুধবার (৫ আগস্ট) বিকেল থেকে হঠাৎ করে মেঘনা নদীর জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পেয়ে চাঁদপুরে বন্যা দেখা দেয়। সেই সঙ্গে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে শহরে পানি ঢোকে।

এতে চাঁদপুর শহরের পাড়া-মহল্লাসহ হাইমচর উপজেলার তিন ইউনিয়নের কয়েক হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েন। পাশাপাশি মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদীর পানি বিপৎসীমার ৭৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়।

jagonews24

স্থানীয় সূত্র জানায়, মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদীর পানিপ্রবাহ বৃদ্ধি পেয়ে শহরের আদালতপাড়া, রহমতপুর কলোনি, প্রফেসরপাড়াসহ পুরানবাজারের বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়। একই সময় হাইমচর উপজেলার চরভৈরবী, হাইমচর সদর ও নীলকমল ইউনিয়নের কয়েক হাজার মানুষের বাসা-বাড়িতে পানি ঢুকে যায়।

এদিকে উপজেলার মহজমপুর, চরভাঙা এলাকায় বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে সেচপ্রকল্প এলাকা পানিতে তলিয়ে যায়। বেড়িবাঁধের বাইরে থাকা ঘরবাড়ি, ফসলি জমি ও পুকুর প্লাবিত হয়।

jagonews24

চাঁদপুর জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ বাবুল আখতার বলেন, উজানের পানি বৃদ্ধির ফলে মেঘনা নদীর পানি অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যায়। এতে করে চাঁদপুর শহরের বিভিন্ন এলাকাসহ হাইমচর উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়ে বন্যার দেখা দেয়। এ অবস্থায় চাঁদপুর শহররক্ষা বাঁধ ঝুঁকিতে রয়েছে। আশা করি ভাটার সময় পানি নেমে যাবে। তবে আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি।

jagonews24

চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান বলেন, হঠাৎ করে পানি বৃদ্ধি পেয়ে শহরে বন্যা দেখা দেয়। বিগত কয়েক দিন জেলার চরাঞ্চলগুলোতে বন্যা থাকলেও শহরে পানি ওঠেনি। বুধবার পানিতে শহরের বিভিন্ন বাসা-বাড়ি প্লাবিত হয়েছে। আশা করছি, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসবে।

ইকরাম চৌধুরী/এএম/বিএ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]