বেপরোয়া বাস কেড়ে নিলো বাবা-মা-মেয়েসহ ৭ জনের প্রাণ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ময়মনসিংহ
প্রকাশিত: ০৫:২৫ পিএম, ০৮ আগস্ট ২০২০

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলায় বাসের চাপায় সিএনজি অটোরিকশার সাত যাত্রী নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে বাবা-মা ও মেয়েসহ এক পরিবারের তিনজন রয়েছেন।

শনিবার (০৮ আগস্ট) সোয়া ৪টার দিকে ময়মনসিংহ-জামালপুর মহাসড়কের মুক্তাগাছা উপজেলার মানকোন এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মুক্তাগাছা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার বিশ্বাস।

নিহতরা হলেন- টাঙ্গাইলের নয়াপাড়া গ্রামের নূর ইসলাম (৩৫), তার স্ত্রী তাসলিমা আক্তার (৩২), তাদের মেয়ে লিজা আক্তার (১২), টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার সোলাকুড়ি গ্রামের সাইদুল ইসলাম (৫৫), নজর মিয়া (৬০), ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার মলাজানি গ্রামের নজরুল ইসলাম (৩৫), একই উপজেলার সিএনজিচালক আলাদুল মিয়া (৩২)। তারা সবাই সিএনজির আরোহী ছিলেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, শনিবার বিকেল সোয়া ৪টার দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা জামালপুরগামী রাজীব পরিবহনের একটি বাস মানকোন এলাকায় সিএনজিকে চাপা দেয়। জামালপুর থেকে ময়মনসিংহে যাচ্ছিল সিএনজি। এতে ঘটনাস্থলেই সিএনজির চার যাত্রী নিহত হন। সেই সঙ্গে তিন যাত্রী আহত হন। হাসপাতালে নেয়ার পথে আহত তিনজনের মৃত্যু হয়।

ময়মনসিংহ জেলা ফায়ার সার্ভিসের ডিউটি অফিসার এসএম সেলিম বলেন, জামালপুরগামী রাজীব পরিবহনের ধাক্কায় দুমড়ে-মুচড়ে যায় সিএনজি। এতে সিএনজির সাত যাত্রী নিহত হন। তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

মুক্তাগাছা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার বিশ্বাস বলেন, খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় রাখা হয়েছে। বাসটিকেও আটক করা হয়েছে।

এএম/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]