সোনাগাজীর সেই মাদরাসা শিক্ষক গ্রেফতার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফেনী
প্রকাশিত: ০২:৫৭ পিএম, ০৭ মার্চ ২০২১

সোনাগাজীর কুঠিরহাট দারুল উলুম মাদরাসায় আসাদুল্লাহ (১২) নামের চতুর্থ শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে বেত দিয়ে পিটিয়ে জখম করার ঘটনায় শিক্ষক মাওলানা মো. ইসমাঈল ওরফে নোয়াখালী হুজুরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (৬ মার্চ) রাতে অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে গ্রেফতার করে পুলিশ।

সোনাগাজী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাজেদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, শুক্রবার (৫ মার্চ) বিকালে পড়া না পারার অজুহাতে মাদরাসার চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী আসাদুল্লাহকে বেত দিয়ে পিটিয়ে জখম করে মাদরাসার অফিস কক্ষে তিন ঘণ্টা আটকে রাখেন শিক্ষক মো. ইসমাঈল।

ওই দিন সন্ধ্যায় অপর এক শিক্ষার্থীর মাধ্যমে ওই ছাত্রের অভিভাবকরা খবর পেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য ওমর ফারুকসহ স্থানীয় এলাকাবাসীর সহযোগিতায় তাকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। পরে এলাকাবাসী ধাওয়া দিলে ওই শিক্ষক পালিয়ে যান

এ ঘটনায় ওই শিক্ষার্থীর মা ফতেমা আক্তার শারমিন বাদী হয়ে শিশু আইনে শনিবার দুপুরে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন।

এদিকে রোববার (৭ মার্চ) মাদরাসার জরুরি সভা ডাকা হয়েছে। কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক অভিভাবক জানান, এর আগেও ইসমাঈল হুজুরের আঘাত সহ্য করতে না পেরে অনেক ছাত্র মাদরাসা ছেড়ে পালিয়ে যায়। শ্রেণিপাঠে ভীতি তৈরি হওয়ায় অনেককে পরে আর পড়ালেখায় মনোযোগী করা যায় না।

স্থানীয় মজলিশপুরের ইউপি চেয়ারম্যান এম এ হোসেন জানান, ইসমাঈল হুজুরের বেত্রাঘাতের বিষয়ে আগেও বেশ কয়েকবার সালিশ হয়েছে। এ বিষয়ে মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা জুবায়ের হোসেন বলেন, শিক্ষার্থীকে মারধরের ঘটনাটি দুঃখজনক। শিক্ষকের অপরাধ প্রতিষ্ঠান বহন করবে না। অপরাধ করলে তাকে অবশ্যই বিচারের মুখোমুখি হতে হবে।

এসএমএম/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]