দুই ভাইয়ের হামলায় বাড়িছাড়া আরেক ভাই

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কুড়িগ্রাম
প্রকাশিত: ০৯:৩৬ পিএম, ০৮ এপ্রিল ২০২১

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে প্রাণনাশের আশঙ্কায় চারদিন ধরে ঘরবাড়ি ছেড়ে আত্মগোপনে রয়েছে একটি পরিবার। এ অবস্থায় পাল্টাপাল্টি মামলা হলেও থানা পুলিশের তেমন ভূমিকা না থাকায় ঘরে ফিরতে পারছেন না পরিবারের সদস্যরা।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, নাগেশ্বরী উপজেলার আলেপের তেপতি এলাকার পৈতৃক সম্পত্তি নিয়ে আফজাল হোসেনের সঙ্গে তার আপন দুই বড় ভাই আলতাফ হোসেন ও আশরাফ আলীর দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। সোমবার (৫ এপ্রিল) বিকেল ৩টার দিকে বড় দুই ভাই আলতাফ হোসেন ও আশরাফ আলীসহ তার পরিবারের লোকজন এবং বহিরাগত সন্ত্রাসীদের নিয়ে আমজাদ হোসেনের বাড়ি ও দোকানে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর চালান। এ সময় আফজাল হোসেন বাড়িতে না থাকায় তার স্ত্রীর ওপর হামলা চালানো হয়। স্ত্রীর চিৎকারে ছেলে মো. মিনহাজুল সরকার রফি (২৩), রফিকুদ্দৌলা রিয়াদ (১৬) ও মেয়ে আবিদা সুলতানা আলো (২০) এগিয়ে এলে তাদের মারধর করা হয়। হামলার সময় আফজাল হোসেনের খামারের ২০০ মুরগি ও ৩০০ হাঁস লুট করে নিয়ে যান তারা।

jagonews24

হামলাকারীরা চলে গেলে গুরুতর আহত অবস্থায় আফজালের স্ত্রী রাশেদাকে উদ্ধার করে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন স্থানীয়রা। আহত ছেলেমেয়েরা গ্রাম্য চিকিৎসকের কাছে চিকিৎসা নিয়ে ভয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যান।

ক্ষতিগ্রস্ত আফজাল হোসেন বলেন, ‘আলতাফ হোসেন আমার আপন বড় ভাই হলেও সে নাগেশ্বরী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হওয়ায় প্রভাব খাটিয়ে আমাদেরকে বিভিন্নভাবে হয়রানি করে আসছে। এমনকি আমার আরেক বড় আশরাফ আলীকে দিয়ে আমার পৈত্রিক সম্পত্তি দখলে নেয়ার চেষ্টা চালিয়ে আসছে। এ ব্যাপারে কয়েকদফা গ্রাম্য সালিশ হলেও তারা তা না মেনে এমন সহিংস ঘটনা ঘটিয়েছে।’

jagonews24

তিনি বলেন, ‘নিজের বাড়িতে আমরা যাতে বসবাস করতে না পারি, সেজন্য বহিরাগত সন্ত্রাসী দিয়ে তারা প্রাণনাশের হুমকি অব্যাহত রেখেছে। এ অবস্থায় বাড়িঘর ছেড়ে আমি আমার পরিবার-পরিজন নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি।’

হামলার বিষয়ে জানতে চাইলে বড় ভাই আশরাফ আলী বলেন, ‘আমার ছেলেরা ভুল করে তার দোকানপাট ভাঙচুর করেছে। এ ব্যাপারে আমি প্রয়োজন হলে ক্ষতিপূরণ দিতে চেয়েছি।’

jagonews24

আরেক বড় ভাই আলতাফ হোসেন বলেন, ‘আফজালের স্ত্রী রাশেদা একজন দস্যু প্রকৃতির মহিলা। ঘটনার সময় ওই মহিলাই আমার হাত ভেঙে দিয়েছে। এ কারণে আমার ছেলেরা তার ওপর আক্রমণ চালিয়েছে। এতে আমার এক ছেলেও আহত হয়েছে।’

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নাগেশ্বরী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রওশন কবির জানান, দুই পক্ষ থেকে মামলা দেয়া হয়েছে। আমরা বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেব।

এসআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]