হাতজোড় করে ক্ষমা চাইলেন পুড়িয়ে পাখি মারা সেই বৃদ্ধ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ঝালকাঠি
প্রকাশিত: ০৭:২৮ পিএম, ১১ এপ্রিল ২০২১

ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার ভৈরবপাশা ইউনিয়নের ঈশ্বরকাঠী গ্রামের দিনমজুর জালাল সিকদার (৬০) বাবুই পাখির ছানা মেরে ফেলার দায় স্বীকার করে সবার কাছে হাতজোড় করে ক্ষমা চাইলেন। তিনি বলেছেন, পাখির বাচ্চা মেরে ফেলা যে আইনগত অপরাধ তা আমি জানতাম না। এমন অপরাধ আর জীবনে কখনো করব না।

বাবুই পাখির ছানা মেরে ফেলার খবর জানতে পেরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুম্পা সিকদার অভিযুক্ত জালাল সিকদারকে শনিবার (১০ এপ্রিল) রাতে তার কার্যালয়ে ডেকে আনেন। এসময় তিনি সবার কাছে ক্ষমা চান।

jagonews24

এসময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. সাখাওয়াত হোসেন, নলছিটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলী আহমেদসহ ভৈরবপাশা ইউনিয়নের গণ্যমান্য ব্যক্তিরা।

ইউএনও রুম্পা সিকদার জানান, জালাল সিকদার একজন বৃদ্ধ মানুষ এবং কৃষক। বাবুই পাখিতে ধান খাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে তিনি ক্ষোভে এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন। তাকে অফিসে ডাকা হলে তিনি এসে প্রকাশ্যে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করে বলেন, আমি অশিক্ষিত মানুষ। কোনো নিয়ম-আইন জানি না। এমন কাজ জীবনেও আর হবে না।

jagonews24

ঈশ্বরকাঠি গ্রামের সিদ্দিক মার্কেটের সামনে জালাল সিকদারের একটি ধানের ক্ষেত রয়েছে। সে ক্ষেতের পাশের তালগাছে বেশ কয়েকটি বাবুই পাখির বসবাস। শুক্রবার (৯ এপ্রিল) ক্ষেতের ধান খাওয়ার অজুহাতে বাবুই পাখি বাসায় আগুন দেন জালাল সিকদার। এতে ৩৩টি ছানা পুড়ে মারা যায়

মো. আতিকুর রহমান/এসআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]