শিবচরে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ : নিহত ১

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মাদারীপুর
প্রকাশিত: ১১:১০ এএম, ১৫ এপ্রিল ২০২১

মাদারীপুরের শিবচরে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকের সংঘর্ষে ইলিয়াছ ঢালী (৪০) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন পাঁচজন।

বুধবার (১৪ এপ্রিল) সন্ধ্যায় উপজেলার কাদিরপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

নিহত ইলিয়াস ঢালী ঢাকায় ফল বিক্রি করতেন। তিনি কাদিরপুর ইউনিয়নের ডিগ্রির চর গ্রামের ইউনুস ঢালীর ছেলে।

এ ঘটনায় আহতরা হলেন, মো. মজিবুর রহমান ওরফে খলিল মোল্লা (৪৫), মো. রুবেল মোল্লা (৩৫), মজিবুর ঢালী (২৭), মজিনা বেগম (২২)। তাদেরকে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়।

শিবচর থানা পুলিশ জানায়, কাদিরপুর ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত এবং পাঁচজন আহত হয়েছেন।

পুলিশ আরো জানায়, কাদিরপুর ইউনিয়নে ৭নং ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী মো. মজিবুর রহমান ও তার ভাতিজা মো. রুবেল মোল্লাকে কুপিয়ে মাথায় জখম করে প্রতিপক্ষ।

কাদিরপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী মো. মজিবুর রহমান মোল্লার প্রতিদ্বন্দ্বী মেম্বার প্রার্থী আব্বাস মুন্সির সঙ্গে আগে থেকেই দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। মজিবুর রহমান খলিল মোল্লা ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী আলহাজ শাহ আলম তালুকদারের ও আব্বাস মুন্সি চেয়ারম্যান প্রার্থী বি এম জাহাঙ্গীর হোসেনের পক্ষে নির্বাচন করেন। এই নিয়ে দ্বন্দ্ব চলছিল।

সেই দ্বন্দ্বের জেরে বুধবার মাগরিবের নামাজ আদায় করতে মসজিদে প্রবেশ পথে মো. মজিবুর রহমান খলিল মোল্লা ও তার ভাতিজাকে মসজিদের পাশে ওত পেতে থাকা মো. আব্বাস মুন্সির সহযোগীরা পেছন থেকে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে জখম করে।

আহত অবস্থায় মজিবুর রহমান ও তার ভাতিজাকে পরিবারের সদস্যরা শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। ভাতিজা মো. রুবেল মোল্লার মাথার আঘাত গুরুতর হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পাঠানো হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনায় মুন্সির সহযোগীদের মধ্যে তিনজন আহত হন। আহতদের মধ্যে রাতে ইলিয়াস ঢালীর অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে মাদারীপুর নেয়ার সময় তিনি মারা যান।

এদিকে বুধবার রাতে হাসপাতাল এলাকায় দু’পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এমনকি আব্বাস মুন্সির সমর্থকরা শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে গেলে অপরপক্ষ ধাওয়া করে বলে অভিযোগ নিহতের স্বজনদের।

শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিরাজ হোসেন বলেন, সংঘর্ষের খবর পেয়ে শিবচর উপজেলা হাসপাতাল এবং ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। তদন্ত করে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কেউ মামলা করেনি।

নাসিরুল হক/এসএমএম/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]