শালবনের ভেতর দিয়ে যাচ্ছে হাই ভোল্টেজের বিদ্যুতের লাইন

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি গাজীপুর
প্রকাশিত: ০৯:০০ এএম, ১৯ এপ্রিল ২০২১

গাজীপুরে মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন ছাড়াই শালবনের ভেতর দিয়ে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বৈদ্যুতিক সঞ্চালন লাইন নির্মাণ কাজ চালাচ্ছে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড। এতে করে হুমকির মুখে পড়েছে শালবন।

গাজীপুর মহানগরীর ২৩নং ওয়ার্ডের হাতিয়াব ময়লারটেক থেকে কালিঘাট ব্রিজ পর্যন্ত গাজীপুর সমরাস্ত্র কারখানা-রাজেন্দ্রপুর সেনানিবাস সড়কে এই লাইন টানানো হচ্ছে। এতে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সুপারিশ উপেক্ষা করা হয়েছে বলে বন বিভাগ সূত্রে জানা গেছে।

ঢাকা বন বিভাগের রাজেন্দ্রপুর রেঞ্জের সালনা বিট কাম চেক স্টেশন অফিসার বিপ্লব হোসেন জানান, অনুমোদন না নিয়েই পাকা সড়ক সংলগ্ন শাল বনের ভেতরে বিদ্যুতের খুঁটি স্থাপন করে নতুন বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন নির্মাণ চেষ্টা করছে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড। বিগত দিনে প্রায় দুই কিলোমিটার সড়কের একপাশে শালবনের ভেতর ৩৩টি খুঁটি স্থাপন করা হয়েছে। গত শনিবার সকাল থেকে খুঁটিগুলোতে বিদ্যুতের তার স্থাপন চেষ্টা চালাচ্ছে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের লোকজন। ওই খুঁটিগুলোতে ৩৩ কেভি ভোল্টের বিদ্যুতের লাইন সচল হলে অগণিত শালগাছ কাটা পড়ার পাশাপাশি খুঁটির আশপাশের গাছগুলোর বেড়ে ওঠার সুযোগ ব্যহত হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০১৭ সালের ২৯ মার্চ পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ৩২তম সভার কার্যবিবরণীর সিদ্ধান্ত ১১ (ঘ) মতে, ‘বন ও পরিবেশের ক্ষতিরোধকল্পে বনের অভ্যন্তরে বিদ্যুৎ লাইন এবং রাস্তা নির্মাণসহ যেকোনো উন্নয়ন প্রকল্প প্রণয়নের পূর্বে পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের সাথে পরামর্শক্রমে প্রকল্প প্রণয়নের জন্য মন্ত্রীপরিষদ বিভাগসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়সমূহকে অবহিত করার সুপারিশ অবগতি ও প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণের সুবিধার্থে মন্ত্রীপরিষদ সচিব, বিদ্যুৎ বিভাগের সচিবসহ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব বরাবর প্রেরণ করা হয়।’

অপরদিকে গাজীপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বিগত ২০১৭ সালের ৩০ অক্টোবর তৎকালীন গাজীপুর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ফারজানা মান্নানের অফিস কক্ষে ‘বিদ্যুৎ বিতরণ লাইন ও বন বিভাগের গাছ কর্তন’ শীর্ষক বিষয়ে সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার কার্যবিবরণী (১) মতে, গাজীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ ও ২, বন বিভাগের সংরক্ষিত বনভূমির উপর দিয়ে কোনো বৈদ্যুতিক লাইন নির্মাণ/স্থাপন অথবা বিদ্যমান বৈদ্যুতিক লাইনের নিরাপত্তা সংরক্ষণ বা অন্য কোনো কারণে সংরক্ষিত বনের কোনো গাছ সম্পূর্ণভাবে কাটার প্রয়োজন হলে গাজীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এবং ২ বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তাদের লিখিতভাবে অবহিত করবে। এছাড়া পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের লিখিত অনুমতি সাপেক্ষে গাজীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ ও ২ সংরক্ষিত বনাঞ্চলের মধ্য দিয়ে বৈদ্যুতিক লাইন স্থাপন করবে এবং প্রয়োজনে গাছ কর্তন করবে।’ ওই সভায় গাজীপুর পল্লী বিদ্যুৎ- ১ ও ২ এবং বন বিভাগের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

jagonews24

পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সুজন শাহা জানান, ২০ কিলোমিটার সড়কে ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে ৩৩ কেভি ভোল্টের নতুন বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন নির্মিত হচ্ছে। এতে অর্থায়ন করেছে বাংলাদেশ সরকার ও বিশ্ব ব্যাংক।

বনের ভেতর নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ নির্মাণের ক্ষেত্রে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের প্রয়োজন আছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীকে এ ব্যাপারে মৌখিকভাবে জানানো হয়েছে। লিখিত অনুমোদনের জন্য আবেদন প্রক্রিয়া চলমান আছে।

বন অধিদফতরের কেন্দ্রীয় অঞ্চল বন সংরক্ষক (সিএফ) আরএসএম মুনিরুল ইসলাম জানান, মন্ত্রণালয়ের অনুমতি না নিয়ে বনের ভেতর বিদ্যুতের খুঁটি স্থাপন কিংবা নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ লাইন নির্মাণের সুযোগ নেই। গাজীপুরের ঘটনাটি বন বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানোর পাশাপাশি বিদ্যুৎ বিভাগকে লিখিতভাবে জানানোর প্রক্রিয়া চলছে।

আমিনুল ইসলাম/এফএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]