ছোট ভাইয়ের স্ত্রীকে গলাটিপে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ ভাসুরের বিরুদ্ধে

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি লালমনিরহাট
প্রকাশিত: ০৯:১৭ পিএম, ২২ এপ্রিল ২০২১

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় নিলুফা বেগম (৩৫) নামের এক গৃহবধূকে শ্লীলতাহানি ও গলাটিপে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে ভাসুরের বিরুদ্ধে। ওই নারী এখন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চিকিৎসাধীন।

এ ঘটনায় বুধবার (২১ এপ্রিল) রাতে আহত নিলুফা বেগম বাদী হয়ে ভাসুর রফিকুল ইসলামকে প্রধান আসামি করে আরও তিনজনের নাম উল্লেখ করে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। এর আগে মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) বিকেলে উপজেলার উত্তর পারুলিয়া এলাকার ২ নম্বর ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্তরা হলেন-উপজেলার উত্তর পারুলিয়া এলাকার ২ নম্বর ওয়াডের্র মৃত জহির উদ্দিনের ছেলে ও আহত গৃহবধূর ভাসুর রফিকুল ইসলাম (৪৫), স্ত্রী ফেরোজা বেগম (৪২), ছেলে রিপন (২৪) এবং পূত্রবধূ সুমি বেগম (২২)। আহত নিলুফা বেগম উপজেলার একই এলাকার অভিযুক্ত রফিকুল ইসলামের ছোট ভাই সাদেকুল ইসলামের স্ত্রী।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার উত্তর পারুলিয়া এলাকার ২ নম্বর ওয়ার্ডের অভিযুক্তদের বাড়ির পাশেই ওই গৃহবধূ ও তার স্বামী বসবাস করেন আসছেন। অভিযুক্ত ও গৃহবধূর স্বামী আপন দুই ভাই। তাদের মাঝে দীর্ঘদিন ধরে পারিবারিক দ্বন্দ্বের কারণে অভিযুক্তরা নিলুফার বাড়িতে হামলা চালিয়ে বাড়ির গেট ভাঙচুর করে ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা চালান। এসময় নিলুফা বেগম তাদের বাধা দেয়ায় অভিযুক্তরা তার শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেন এবং মারধর শুরু করেন।

মারধরের এক পর্যায়ে ভাসুর রফিকুল ইসলাম নিলুফা বেগমের গলা টিপে ধরেন। তার চিৎকারে স্থানীয়রা ছুটে আসলে তারা পালিয়ে যান। পরে আহত অবস্থায় নিলুফাকে উদ্ধার করে হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান স্থানীয়রা।

বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) বিকেলে হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায়, নির্যাতনের স্বীকার নিলুফা বেগমের গলা টিপে ধরার দাগ রয়েছে। নিলুফা জাগো নিউজকে বলেন, ‘ভাইয়ে ভাইয়ে বিবাদের কারণে আমাকে বাড়িতে একা পেয়ে মারধর করেন এবং একপর্যায়ে ভাসুর গলাটিপে ধরে হত্যার চেষ্টা করেন। স্থানীয়রা ছুটে না আসলে আমি হয়তো আজ বেঁচে থাকতাম না।’

এ বিষয়ে ওই গৃহবধূর স্বামী সাদেকুল ইসলাম বলেন, ‘আমি সেই সময় বাইরে ছিলাম। খবর পেয়ে ছুটে যাই। গিয়ে শুনি আমার স্ত্রীকে স্থানীয়রা আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছেন।’

হাতীবান্ধা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এরশাদুল আলম বলেন, ‘এ ঘটনায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

রবিউল হাসান/এসআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]