মামলার ৪৮ ঘণ্টায় আদালতে চার্জশিট দিল পুলিশ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নোয়াখালী
প্রকাশিত: ০৯:০১ পিএম, ২১ জুন ২০২১ | আপডেট: ০৯:৩৫ পিএম, ২১ জুন ২০২১
প্রতীকী ছবি

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার ভাওরকোট গ্রামের মো. ইলিয়াছ হত্যাকাণ্ডে মামলা দায়েরের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে আদালতে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ।

সোমবার (২১ জুন) বিকেলে জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. গিয়াস উদ্দিন।

তিনি জানান, গত শুক্রবার (১৮ জুন) দুপুর দেড়টায় পাওনা টাকাকে কেন্দ্র করে বড় ভাই শাহ আলম, গোলাম ছারওয়ার, ভাতিজা নাছির আহমেদ শুভ ও সজিব আহমেদ জিদানের রড়ের পিটুনি ও ছুরিকাঘাতে মো. ইলিয়াছ (৩৫) মারা যান।

এ ঘটনায় ওই রাতে নিহতের সৎ মা রওশন আক্তার বাদী হয়ে চারজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন। পুলিশ জিদান ছাড়া বাকি তিন আসামিকে গ্রেফতার করে। এর মধ্যে আসামি গোলাম ছারওয়ার হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন। এছাড়া তার দেখানোমতে হত্যায় ব্যবহৃত ছোরা ও লোহার রড়ও উদ্ধার করে পুলিশ।

হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলাটি তদন্ত করে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রোববার (২০ জুন) দুপুরে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন সোনাইমুড়ী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আ ফ ম কামাল উদ্দিন।

ওসি আরও জানান, আসামিদের রড়ের আঘাতে মো. ইলিয়াছ মাটিতে লুটিয়ে পড়লে ভাই শাহ আলম, ভাতিজা শুভ ও জিদান পিছন দিক থেকে টেনে ধরে। পরে আরেক ভাই গোলাম ছারওয়ার ছুরি দিয়ে ছোটভাইকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করেন।

এদিকে আসামি নাছির আহমেদ শুভ ও সজিব আহমেদ জিদান শিশু হওয়ায় তাদের নামে দোষীপত্র আদালতে দাখিল করা হয়েছে বলেও জানান ওসি।

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) মো. আলমগীর হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসতে দেরি হওয়ায় মামলায় চার্জশিট দিতেও সময় লাগে। এ ঘটনায় দ্রুত ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ায় এবং মূল আসামি গ্রেফতার ও পুলিশের তদন্ত শেষ হওয়ায় ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে চার্জশিট দেয়া হয়।

ইকবাল হোসেন মজনু/আরএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]