নীলফামারীতে দুস্থদের ভিজিএফের চাল কালোবাজারে বিক্রি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নীলফামারী
প্রকাশিত: ০৫:৪৪ পিএম, ১৮ জুলাই ২০২১

ঈদুল আজহায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ উপহার ভিজিএফের চাল বিক্রি হচ্ছে কালোবাজারে। রোববার (১৮ জুলাই) সকালে বস্তায় বস্তায় চাল কলোবাজারীদের কাছে বিক্রি নিয়ে হট্টগোল সৃষ্টি হলে বিতরণ বন্ধ করে দেন গয়াবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সামচুল হক।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার গয়াবাড়ী ইউনিয়নের পাঁচ হাজার ৪৮৮ পরিবারের জন্য বিশেষ ভিজিএফ বরাদ্দ দেয়া হয়। গুদামে চাল সংকটের কারণে শনিবার বরাদ্দকৃত ৫৪ দশমিক ৮৮ টন চালের মধ্যে ৪১ টন চাল উত্তোলন করেন ইউপি চেয়ারম্যান। সে চাল উপকারভোগীদের মাঝে শনিবার সকালে বিতরণ শুরু হয়। প্রত্যেক উপকারভোগীর ১০ কেজি করে চাল বরাদ্দ থাকলেও বস্তায় বস্তায় চাল নিয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

বেলা ১১টার দিকে দেখা যায়, সুটিবাড়ি ডালিয়া রাস্তায় ওমর আলীর স্ত্রী সালেহা বেগম (৩৫) ভ্যানে বসে ৩৪০ কেজি চাল নিয়ে যাচ্ছেন। একইভাবে ইউনিয়নের গয়াবাড়ী গ্রামের জসিম উদ্দিনের ছেলে সাহিনুর ইসলাম একটি ভ্যানে করে ৩০ কেজি ওজনের আটটি বস্তা ও ৫০ কেজি ওজনের দুটি বস্তা নিয়ে যেতে দেখা যায়। চালগুলো তার নিজের বলে দাবি করে সে। এক পর্যায়ে সেখানে ২০-২২ জনের চাল রয়েছে বলে জানায়।

গয়াবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান সামচুল হক বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের (ইউএনও) সঙ্গে কথা বলে প্যাকেটজাত বস্তা বিতরণ করা হচ্ছে। কেই স্লিপ বিক্রি করলে আমাদের কিছু করার নেই। কেই পাঁচটি স্লিপ দিলে তাকে এক বস্তা চাল দেয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মেজবাহুর রহমান বলেন, চাল বিতরণে কোনো অনিয়ম হলে চেয়ারম্যানকে দায়িত্ব নিতে হবে।

ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জয়শ্রী রানী রায় বলেন, চেয়ারম্যান আমার সঙ্গে কোনো কথা বলেননি। বিষয়টি তদন্ত করার জন্য পিআইওকে পাঠানো হয়েছে।

জাহেদুল ইসলাম/আরএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]