রাস্তায় ছিটকে পড়ল দিনমজুরের কেনা চাল, খাদ্যসহায়তা দিলেন ইউএনও

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কুষ্টিয়া
প্রকাশিত: ০৭:০৭ পিএম, ০১ আগস্ট ২০২১

করোনা রোধে চলমান বিধিনিষেধে হাতে নেই কোনো কাজ। ঘরে নেই খাবার ও পর্যাপ্ত টাকা। উপায়ান্তর না পেয়ে অনেকটা বাধ্য হয়েই ৩০ টাকা দরে ওএমএস’র পাঁচ কেজি চাল কিনে বাড়িতে ফিরছিলেন দিনমজুর হানিফ শেখ।

পথিমধ্যে অটোভ্যানের সঙ্গে ধাক্কা লেগে চালসহ ওই দিনমজুর রাস্তায় ছিটকে পড়েন। এতে চালে ময়লা লেগে তা খাবার অনুপোযোগী হয়ে যায়। একইসঙ্গে সামান্য পায়ে আঘাত পান দিনমজুর হানিফ। পরে উপস্থিত লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করেন এবং রাস্তায় পড়ে থাকা ময়লা লেগে যাওয়া চালগুলো পুনরায় ব্যাগে ভরার চেষ্টা করেন।

রোববার (১ আগস্ট) দুপুরে কুষ্টিয়ার কুমারখালী পৌরসভার হলবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় বিধিনিষেধে অভিযান শেষ করে কার্যালয়ে ফিরছিলেন কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিতান কুমার মণ্ডল। ঘটনা চোখে পড়তেই তিনি দ্রুত গাড়ি থেকে নেমে ওই দিনমজুরের কাছে যান। এরপর গাড়িতে থাকা মেডিসিন দিয়ে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। সব কিছু দেখে-শুনে তিনি প্রধানমন্ত্রীর উপহারের খাদ্যসহায়তার একটি বস্তা ওই দিনমজুরের হাতে তুলে দেন। এরপর একটি ভ্যান ঠিক করে ভাড়া দিয়ে তাকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।

দিনমজুর হানিফ শেখ পৌরসভার খয়ের চারা এলাকার বাসিন্দা। তিনি বলেন, ‘লেবারের কাজ করি। লকডাউনে কাজ নাই। ঘরে তেমন টাকাও নাই। পাঁচ কেজি ওএমএস’র চাল কিনে বাড়িতে ফিরছিলাম। এ সময় ভ্যানের ধাক্কায় চালসহ রাস্তায় ছিটকে পড়ি। এতে চাল নষ্ট হয়ে যায় আর আমার ডান পায়ের হাঁটুর অংশ কেটে যায়। এমন একটি গাড়িতে ইউএনও আসলেন। তিনি আমার চিকিৎসা করলেন, খাদ্যসামগ্রী দিলেন। আবার ভাড়া দিয়ে ভ্যানে তুলে দেন।’

এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিতান কুমার মণ্ডল বলেন, ‘মানুষ হিসেবে বিপদে পড়া একজন মানুষকে সহযোগিতা করা দায়িত্ব এবং কর্তব্যের মধ্যেই পড়ে। আমি আমার দায়িত্ব পালন করেছি। এর বেশি কিছু নয়।’

আল-মামুন সাগর/এসজে/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]