ঠাকুরগাঁওয়ে সাড়ে ২৯ বস্তা অবৈধ বিড়ি আটক

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ঠাকুরগাঁও
প্রকাশিত: ০৮:৪৬ এএম, ০২ অক্টোবর ২০২১

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা জগন্নাথপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাড়ে ২৯ বস্তা অবৈধ বিড়ি আটক করেছে স্যানিটারি দপ্তর। আটককৃত এসব বিড়ি ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা জগন্নাথপুর পরিষদে হেফাজতে রাখা হয়। তবে আটককৃত সেই সাড়ে ২৯ বস্তা থেকে ১৫ বস্তা বিড়ি সরিয়ে ফেলার অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, গত বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঠাকুরগাঁও স্যানিটারি ইন্সপেক্টের ফারুক হোসেনের নেতৃত্বে একটি দল জগন্নাথ বাসুদেবপুর এলাকার জতীশের বাড়ি থেকে কর ফাঁকি দেওয়া অবৈধ সাড়ে ২৯ বস্তা বিড়ি আটক করেন। পরে আটককৃত অবৈধ বিড়ি জগন্নাথপুর ইউনিয়ন পরিষদে হেফাজতে রাখা হয়। কিন্তু শুক্রবার (১ অক্টোবর) বিকেলে পরিষদ থেকে ইউপি চেয়ারম্যান আলাল মাস্টার ও স্যানেটারি ইন্সেপেক্টর ফারুক হোসেন সেখান থেকে ১৫ বস্তা বিড়ি জতীশের সহযোগী নুকুলকে দিয়ে দেন। এ নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

ইউপি সদস্য বাবুল অভিযোগ করে বলেন, অবৈধ আটকৃত ১৫ বস্তা বিড়ি কীভাবে ফেরত দেওয়া হয়েছে সেই বিষয়ে চেয়ারম্যান সঠিক উত্তর দিতে বা বৈধ কাগজপত্র দেখাতে পারেননি। অবৈধ লেনদেন ও যোগসাজশে ওই ১৫ বস্তা বিড়ি ফেরত দেওয়া হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

এ বিষয়ে জতীশ ও তার সহযোগী নুকলের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে দুজনের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তবে ইউপি সদস্য বাবুলের সঙ্গে নুকুলের কথোপকথনের একটি রেকর্ড পাওয়া গেছে। যেখানে নুকুল অর্থ লেনদেনের বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

জগন্নাথপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলাল মাস্টার জানান, আটককৃত বিড়ি স্যানিটারি ইন্সপেক্টর পরিষদে হেফাজতে রেখেছিলেন। এর মধ্যে কিছু বিড়ির বৈধতা থাকার কারণে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তবে বৈধতার কাগজপত্র রয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি সদুত্তর দিতে পারেননি।

ঠাকুরগাঁও স্যানিটারি ইন্সপেক্টর ফারুক হোসেন জানান, সরকারি কর ফাঁকি দেওয়ায় অবৈধ সাড়ে ২৯ বস্তা বিড়ি আটক করা হয়েছে। যার বাজার মূল্য প্রায় সাড়ে ৫ লাখ টাকা। ১৫ বস্তা বিড়ি উধাও হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ফেরত দেওয়া ১৫ বস্তা বিড়ির প্যাকেটে ব্যান্ড রোল থাকায় ফেরত দেওয়া হয়েছে। বাকি বস্তাগুলো আটক রয়েছে।

তবে সেই অবৈধ বিড়ির মালিকের বিরুদ্ধে কেন আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে নিজের ভুল স্বীকার করেন।

তানভীর হাসান তানু/ইএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]