সরকারি রাস্তায় যুবলীগ নেতার চাতাল, অবরুদ্ধ ২০ পরিবার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ঠাকুরগাঁও
প্রকাশিত: ১২:৩৩ পিএম, ০৫ অক্টোবর ২০২১

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলায় সরকারি রাস্তার ওপর মিল চাতাল নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় এক যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে। ফলে যাতায়াতের জন্য নিজস্ব কোনো ব্যবস্থা না থাকায় দীর্ঘদিন ধরে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে আছে ২০ পরিবার। বিষয়টি ইউপি ও উপজেলা চেয়ারম্যান এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) জানালেও এখনো কোন সমাধান হয়নি বলে অভিযোগ তাদের।

সোমবার (৪ অক্টোবর) উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের বালিয়া গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, যানবাহন চলাচলের একটি পিচঢালা সড়কের সঙ্গে সংযোগ হয়ে গ্রামটির দিকে একটি রাস্তা শুরু হয়েছে। তবে রাস্তাটি ২০০গজ সামনে গিয়েই থেমে যায়। সেখানে একটি বিরাট ধান শুকানোর চাতাল আছে। চাতালটি শেষে আবার সেই রাস্তাটির সীমানা চোখে পড়ে।

ভুক্তভোগী আলমগীর হোসেন জানান, এলাকাটিতে প্রায় ২০ পরিবারের বসবাস। তার নিজের বাসায় ১৫ জন সদস্য। যেখানে কিছু স্কুলের ছাত্রছাত্রীসহ তার অসুস্থ বাবা মা আছেন। বাসায় যাওয়ার আট ফুটের একটি সরকারি রাস্তা আছে তবে সেটা তারা ব্যবহার করতে পারছেন না।

jagonews24

তিনি অভিযোগ করে বলেন, সরকারি রাস্তাটি স্থানীয় যুবলীগ নেতা সাইদুল ইসলামের দখলে। তাই বেশ কিছুদিন থেকে আমরা অন্যের মালিকানাধীন দুই ফুটের রাস্তা ব্যবহার করছিলাম। আমার বাবা মা অসুস্থ হলে কাঁধে করে আধাকিলোমিটার হেঁটে তাদের অ্যাম্বুলেন্সে উঠাতে হয়েছে। তবে এখন সেই দুই ফুটের রাস্তাটি মালিক নিজ প্রয়োজনে ব্যবহার করবে বলে জানিয়েছেন। এমন অবস্থায় যদি সরকারি রাস্তাটি আমরা না পাই, তাহলে নিজেদের বাসায় যাওয়া-আসার আর কোনো সুযোগ থাকবে না।

বাসিন্দা কালাম ও সোহেল বলেন, সাইদুলকে বেশ কয়বার অনুরোধ করেও কোনো লাভ হয়নি। এরপর আমরা ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে নালিশ করেছি। তবে চেয়ারম্যানের চেষ্টাও বৃথা গেছে। আমাদের কোনো সমাধান দিতে পারেননি। এরপর উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউএনওর কাছেও অভিযোগ করেছি। তবে এখনো কোনো সমাধান নেই। এমন অবস্থায় আমরা অসহায় হয়ে পড়েছি। আমরা এখন অবরুদ্ধ।

বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে বালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরে আলম সিদ্দিকি জাগো নিউজকে বলেন, পরিষদে এমন একটি অভিযোগ আসার পর আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখেছি। সাইদুল ইসলামের স্থাপনাটি সিএস রেকর্ডধারী রাস্তার ওপরে নির্মিত। বিষয়টি আমরা ভূমি অফিস থেকে নিশ্চিত হয়েছি। তবে পরিষদ থেকে বেশ কয়বারর চেষ্টা করেও রাস্তাটি উদ্ধার করতে ব্যর্থ হয়েছি। গ্রামবাসীর স্বার্থে প্রশাসনিকভাবে সমাধান বের করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

jagonews24

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সদর উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি সাইদুল ইসলামের সঙ্গে কথা হয় জাগো নিউজের। সরকারি রাস্তার ওপরে তার স্থাপনা থাকার বিষয়টি স্বীকার করে তিনি বলেন, এটা আমার কেনা জমি। বিক্রেতা সরকারি রাস্তার বিষয়টি গোপন করে জমিটি বিক্রি করে আমাকে ঠকিয়েছে। অজান্তেই আমি স্থাপনা গড়ে তুলেছি। এখন বলা মাত্রই স্থাপনা সরানো সম্ভব না। আলোচনা সাপেক্ষে অন্যদিকে রাস্তা দেওয়া যেতে পারে। বিষয়টি আলোচনা করে দেখবো।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু তাহের মো. সামসুজ্জামান জাগো নিউজকে বলেন, আমি কিছুদিন আগেই নতুন করে দায়িত্ব গ্রহণ করেছি। অভিযোগটি আগের কর্মকর্তা কাছে এসেছিলো। তাই আমি পরিষ্কারভাবে তেমন কিছু জানি না। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে সঠিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তানভীর হাসান তানু/এসজে/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]