মূল ঘটনা চাপা দিতে ইকবালকে আবিষ্কার: গয়েশ্বর

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কুমিল্লা
প্রকাশিত: ০৬:৩৭ পিএম, ২৩ অক্টোবর ২০২১

ইকবাল নামে এক ভবঘুরে-উন্মাদ ও মাদকাসক্তকে আবিষ্কার করা হয়েছে, তিনি নাকি মণ্ডপে কোরআন রেখেছেন। ওই লোকটার মাথায় কীভাবে এলো পবিত্র কোরআন শরিফ মন্দিরে রাখতে হবে। সরকার কাল্পনিক এ ঘটনা দিয়ে মূল ঘটনাকে চাপা দেওয়ার এক অপচেষ্টা করছে- বলেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) কুমিল্লায় ক্ষতিগ্রস্ত কাপড়িয়াপট্টি শ্রী শ্রী চাঁন্দমনি রক্ষাকালী মন্দির পরিদর্শনে এসে তিনি এসব কথা বলেন।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, পূজামণ্ডপে কোরআন পাওয়াসহ সারাদেশে দাঙ্গা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার দায় স্বীকার করতে হবে। সরকারের ইন্ধন ও পৃষ্ঠপোষকতা না থাকলে সাত দিনব্যাপী ভাঙচুর হতে পারে না। সরকার নাগরিকদের নিরাপত্তা দিতে অনাগ্রহী। আগ্রহ থাকলে ব্যর্থতার প্রশ্নই আসে না।

কুমিল্লা, নোয়াখালী, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর এবং উত্তরবঙ্গসহ সারাদেশে পাঁচ শতাধিক মন্দির ভাঙচুর দাবি করে তিনি বলেন, আমাদের নেতাকর্মীরা যখন ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়িয়েছেন ঠিক তখনই তাদের বিরুদ্ধ মামলা দিয়ে দমন-পীড়নের চেষ্টা করছে সরকার।

বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, সারাদেশে জরিপ করলে ৮০ শতাংশ হিন্দুদের জমি-বাড়িঘর আওয়ামী লীগের দখলে। তারা দেশে থাকলেও লাভ দেশ ছেড়ে চলে গেলেও লাভ। কারণ হিন্দুদের দেশ ত্যাগ করাতে পারলে বাড়িঘরের মালিক হন তারা। যদি থাকে তা হলে ভোটের মালিক হন।

এসময় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা অজয় রায় চৌধুরী, গৌতম রায়, দেবাশীষ চৌধুরী, অমলেন্দু দাস, সৈয়দ জাহাঙ্গীর, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমিন-উর-রশিদ ইয়াছিন ও সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মোস্তাক মিয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জাহিদ পাটোয়ারী/আরএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]