ঢাবি অধ্যাপক হত্যা: আদালতে দায় স্বীকার আনারুলের

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি গাজীপুর
প্রকাশিত: ০৮:২০ পিএম, ১৮ জানুয়ারি ২০২২
গ্রেফতার আনারুল ইসলাম (লাল জ্যাকেট পরিহিত), ইনসেটে নিহত ঢাবি অধ্যাপক সাইদা গাফফার

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক সাইদা গাফফারকে হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার কন্ট্রাক্টর আনারুল ইসলাম স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় গাজীপুর মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. নিয়াজ মাখদুমের আদালতে জবানবন্দি দেন তিনি।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উত্তর বিভাগের উপ-কমিশনার (অপরাধ) মো. জাকির হাসান জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, রিমান্ড শেষে মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে গাজীপুর মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. নিয়াজ মাখদুমের আদালতে হাজির করা হয় আনারুলকে। স্বীকারোক্তি দিতে চাইলে দুপুর আড়াইটার দিকে তাকে বিচারকের খাস কামরায় নেওয়া হয়। পরে সেখানে তিনি অধ্যাপক সাইদা হত্যায় নিজের জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে বিস্তারিত জবানবন্দি দেন।

জাকির হাসান আরও বলেন, বিচারককে আনারুল জানিয়েছেন টাকার লোভেই ১১ জানুয়ারি সন্ধ্যায় কাশিপুরের পানিশাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আবাসন প্রকল্পের ভিতরে অধ্যাপক সাইদাকে (৭১) মুখ চেপে ধরে চাদর গলায় পেঁচিয়ে হত্যা করেন। অধ্যাপকের ব্যাগে থাকা ১০ হাজার টাকা, দুটি মোবাইল ফোন ও চাবি নিয়ে ঘর এবং আলমারি খোলেন। আলমারিতে মূল্যবান কিছু না পেয়ে পালিয়ে গাইবান্ধায় শ্বশুরবাড়ি চলে যান। জবানবন্দি শেষে বিচারক তাকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

অধ্যাপক সাইদা গাফফার ঢাকা বিশ্বদ্যালয়ের শিক্ষক আবাসন প্রকল্পে তার মালিকানাধীন প্লটে বাড়ি নির্মাণের জন্য প্রকল্প সংলগ্ন দক্ষিণ পানিশাইল মোশারফ মৃধার বাড়ির দ্বিতীয় তলায় একটি ফ্ল্যাটে ভাড়া থাকতেন। সেখানে থেকেই বাড়ি নির্মাণ কার্যক্রম দেখাশোনা করতেন। শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) সকালে প্রকল্পের ভেতরে একটি ঝোপ থেকে অধ্যাপকের গলায় ওড়না পেঁচানো মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

মো. আমিনুল ইসলাম/এসজে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]