কুড়িগ্রামে স্কুলের দেয়াল ধসে শ্রমিকের মৃত্যু

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কুড়িগ্রাম
প্রকাশিত: ০৪:১৫ পিএম, ২৬ জানুয়ারি ২০২২

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দেয়াল ধসে আবু হানিফ (৩৫) নামে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছেন আরও দুইজন।

বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৮টায় উপজেলার দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের ঝগড়ারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। স্কুলের পরিত্যক্ত টিনশেড ভবনের দেয়াল ভাঙার কাজ চলছিল বলে জানা গেছে।

নিহত আবু হানিফ দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের ঝগড়ারচর গ্রামের মৃত আজিবুর রহমানের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ঝগড়ারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় দীর্ঘদিনের পুরানো একটি টিনশেড ভবনের দেয়াল ভাঙার কাজ করছিল কয়েকজন শ্রমিক। সকালে কাজ করার সময় হঠাৎ দেয়ালের একটি অংশ ধসে পড়ে।

এতে চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান হানিফ। এ সময় স্কুল দপ্তরি জাহিদ হাসান ও ফজলুল নামের আরও দুই শ্রমিক গুরুতর আহত হন। তাদের রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. সুরুজ্জামান বলেন, ‘নিলাম কার্যক্রম ছাড়াই পরিত্যক্ত ভবনটি ভাঙার সময় দেয়াল চাপায় আবু হানিফ নামের এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে।’

ঝগড়াচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শামছুল আলম বলেন, পরিত্যক্ত টিনশেড ভবনের দেয়াল ভাঙার সময় দেয়াল চাপায় এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও দুজন।

তিনি আরও বলেন, ম্যানেজিং কমিটির রেজুলেশন অনুযায়ী পরিত্যক্ত টিনশেড ভবনের দেয়াল ভাঙার কাজ করা হয়।

রৌমারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার (টিও) মো. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘স্কুলের পরিত্যক্ত টিনশেড ভবনের দেয়াল ভাঙার কাজ করতে গিয়ে দেয়াল ধসে পড়লে একজন শ্রমিক মারা যায়। দেয়ালটি অনেক দিনের পুরানো ও খুবই ঝুঁকিপূর্ণ ছিল।

তিনি আরও বলেন, ওই বিদ্যালয়ের পরিত্যক্ত ভবন ভাঙার কোনো অনুমতি দেওয়া হয়নি। বিষয়টি ঊধ্র্বতন কর্তৃপক্ষে জানানো হয়েছে।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আল ইমরান জানান, ‘বিদ্যালয়ের টিনশেড ভবন ভাঙার অনুমতি দেওয়া হয়নি। তবে শুনেছি ভবনের দেয়াল ভাঙার কাজ করতে গিয়ে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে।’

রৌমারী থানার এসআই মো. আনছার আলী বলেন, সুরুতহাল রিপোর্ট তৈরির পর নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ না থাকায় মরদেহ দাফনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

রৌমারী থানার ওসি মোন্তাছের বিল্লাহ্ বলেন, লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মাসুদ রানা/এএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]