নরসিংদীতে ঘরে ঢুকে গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নরসিংদী
প্রকাশিত: ০৮:৪৯ পিএম, ২৮ জানুয়ারি ২০২২
ভ্যানে নিহতের মরদেহ

নরসিংদী পৌরসভায় প্রকাশ্যে বাড়ির ভেতরে ঢুকে মানসুরা আক্তার ইতি (২৩) নামে এক গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) বিকেলে পৌর শহরের সাঠিরপাড়া এলাকার সাত্তার ভিলাতে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ সন্ধ্যায় নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে। এ সময় নিহত গৃহবধূর স্বামী মসিউর রহমান হিমেলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

নিহত ইতি পাঁচদোনা এলাকার মজিবুর রহমানের মেয়ে। তার স্বামী হিমেল সাঠিরপাড়া কালিকুমার উচ্চ বিদ্যালয়ের রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক। তারা সাঠিরপাড়া এলাকার সাত্তার ভিলায় বসবাস করছিলেন।

নিহতের স্বজনরা জানান, প্রায় পাঁচ বছর আগে হিমেলের সঙ্গে ইতির বিয়ে হয়। তাদের জান্নাতুল নামে চার বছরের একটি সন্তানও রয়েছে। শুক্রবার সকালে হিমেল তার গ্রামের বাড়ি বেলাবো উপজেলার সল্লাবাদ ইউনিয়নের ইব্রাহীমপুরে যান।

দুপুরে দেড়টার দিকে স্ত্রী ইতিকে মোবাইল ফোনে কল দেন হিমেল। একাধিকবার ফোন দিলেও ইতি ফোন ধরেন না। পরে হিমেল বিষয়টি তার শ্বশুরকে জানান। সেখানে গিয়ে ইতির বাবা মেয়ের গলাকাটা মরদেহ পড়ে থাকতে দেখেন। ঘরের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখেন তার নাতনিকে। খবর পেয়ে পুলিশ সন্ধ্যা ৭টার দিকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

এদিকে নৃশংস এই হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাহেব আলী পাঠানসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

নিহতের ভাই সবুজ বলেন, দুপুর ১টার দিকে বোনকে ফোন দিয়েছিলাম। তখন সে ফোন ধরেনি। ফোন ধরেছে ভাগনি। বোনকে দিতে বলার পর ভাগনি বললো মা ঘর মুছছে। এখন দেওয়া যাবে না। পরে ফোন কেটে দেই। বিকেলে জানতে পারি তাকে মেরে ফেলা হয়েছে।

নরসিংদী অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাহেব আলী পাঠান জাগো নিউজকে বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় নিহতের স্বামীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। তবে কী কারণে এই হত্যাকাণ্ড তা এখনো স্পষ্ট নয়। তদন্ত চলছে। অচিরেই সব কিছু খোলসা করা সম্ভব হবে।

সঞ্জিত সাহা/এসজে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]