স্কুলমাঠে খেলতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ছাত্রের মৃত্যু

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি গাইবান্ধা
প্রকাশিত: ১০:০১ এএম, ১৫ মে ২০২২

গাইবান্ধার সাঘাটায় খেলতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে নীরব ইসলাম (১০) নামে এক স্কুলছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (১৪ মে) সন্ধ্যায় সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়া এলাকার কালপানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

নীরব ইসলাম বোনারপাড়া ইউনিয়নের জহুরুল ইসলামের ছেলে। সে ওই স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

স্থানীয়দের অভিযোগ, স্থানীয় ছেলে-মেয়েরা প্রায় সময় এই বিদ্যালয়ে খেলাধুলা করতো। ফলে স্কুলমাঠটি অপরিষ্কার হতো। প্রধান শিক্ষক আব্দুল বাকি স্কুলমাঠে খেলাধুলা বন্ধ করতে অনেকবার নিষেধ করলেও বন্ধ করতে পারেননি। তাই স্কুলের বারান্দা ও টিনের চালে বৈদ্যুতিক সংযোগ দিয়ে খেলাধুলা বন্ধের চেষ্টা করেন।

এভাবে কয়েক দিন চলার পর শনিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে স্কুলমাঠে খেলতে আসে স্কুল সংলগ্ন এলাকার বেশকিছু ছেলে। খেলার সময় অসাবধানতাবশত বারান্দার টিনের চালে হাত লেগে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা যায় নীরব।

তবে লুৎফর ইসলাম নামে এক স্থানীয় জানান, ছেলেরা খেলার সময় বল গিয়ে স্কুলের চালের ওপরে পড়ে। নীরব ইসলাম বলটি নেওয়ার জন্য স্কুলের বারান্দার টিনের চালে ওঠে। বারান্দার টিনের চালটির ওপর দিয়ে মেইন লাইন আসার ফলে তারে লিকেজ হয়ে চালের টিন বিদ্যুতায়িত হয়ে ছিল। ফলে শিশুটির মৃত্যু হয়।

স্থানীয় বাসিন্দা কাসেম উদ্দিন জানান, ওই বারান্দার টিনের চালের ওপর বৈদ্যুতিক সংযোগ আনেক আগে থেকেই লিকেজ ছিল। ফলে মাস খানেক আগেও এক শিক্ষার্থী আহত হয়। কিন্তু কর্তৃপক্ষ এটির কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। আমরা এ ঘটনার বিচার চাই।

নিহত নীরবের বাবা জহুরুল ইসলাম জানান, স্কুল কর্তৃপক্ষের অবহেলার আমার ছেলের মৃত্যু হয়েছে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

স্কুলটির দপ্তরি মিলু মিয়া জাগো নিউজকে বলেন, গতকাল ৪টার সময় আমি স্কুল বন্ধ করে বাড়ি ফিরি। এরপরে কী ঘটেছে আমি কিভাবে বলবো?

স্থানীয় বোনারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাছিরুল আলম স্বপন বলেন, স্কুলছাত্রের মৃত্যু ঘটনাটি মর্মান্তিক। এটি আসলে কিভাবে ঘটলো ঘটনাস্থলে না গিয়ে বলতে পারবো না।

বৈদ্যুতিক সংযোগ দিয়ে শিশুদের খেলাধুলা বন্ধ করার বিষয়টি অস্বীকার করে স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল বাকি জাগো নিউজকে বলেন, আমরা স্কুল বন্ধ করে বাড়ি আসার পর সন্ধ্যার দিকে ওই স্কুলছাত্র মারা যায়। স্কুলমাঠে কোনো বৈদ্যুতিক সংযোগ দেওয়া ছিল না। হয়তো শিশুটি বারান্দার টিনের চালে উঠে মেইন লাইনে হাত দেওয়ায় এ ঘটনা ঘটে।

সাঘাটা থানার বোনারপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ রাকিব হাসান জাগো নিউজকে বলেন, এ ঘটনায় শিশুটির পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেব।

জাহিদ খন্দকার/এফএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]