স্কুলছাত্রীকে আত্মহত্যার প্ররোচনায় প্রেমিকের ৫ বছরের কারাদণ্ড

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি টাঙ্গাইল
প্রকাশিত: ০৬:২৫ পিএম, ২৫ মে ২০২২

টাঙ্গাইলে স্কুলছাত্রীকে আত্মহত্যার প্ররোচনা মামলায় তার প্রেমিককে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই মামলায় ও অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় আটজনকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (২৫ মে) দুপুরে টাঙ্গাইল চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সাউদ হাসান এ রায় ঘোষণা করেন।
এছাড়া রায়ে দণ্ডিতকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে।

দণ্ডিত মাধব চন্দ্র পাল (৩৩) টাঙ্গাইল পৌরসভার এনায়েতপুর এলাকার সুশীল চন্দ্র পালের ছেলে।

টাঙ্গাইল আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) এস আকবর খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, দণ্ডিত মাধব পালের সঙ্গে জেলা সদর হাইস্কুলের নবম শ্রেণির এক ছাত্রীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একপর্যায়ে মাধব তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানালে ২০১৫ সালের ১৫ মে ওই ছাত্রী ঘুমের ট্যাবলেট খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। চিকিৎসার পর সুস্থ হলে এলাকায় সালিশি বৈঠকে মাধবের সঙ্গে তার বিয়ের দিন ধার্য করা হয়। তবে মাধব ফোনে ওই ছাত্রীকে জানান, চাপে পড়ে তিনি বিয়েতে রাজি হয়েছেন। বিয়ের পর ওই ছাত্রীকে তিনি শান্তিতে থাকতে দেবেন না। এসময় তিনি তাকে আত্মহত্যা করতে বলেন। ২০১৫ সালের ১৯ মে সকালে ওই ফোন পাওয়ার পর স্কুলছাত্রী কান্নাকাটি শুরু করে এবং ঘরের দরজা বন্ধ করে ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করে।

এ ঘটনায় ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে ওইদিনই মাধব, তার বাবা সুশীল পাল, মা আলো রানী পালসহ নয়জনকে আসামি করে টাঙ্গাইল সদর থানায় মামলা করেন।

বুধবার রায় ঘোষণার পর দণ্ডিত মাধব পালকে জেলা কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

আরিফ উর রহমান টগর/এমআরআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]