দিনাজপুরে কৃষকদের বীজ-সার-কীটনাশক দিলো প্রাণ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি দিনাজপুর
প্রকাশিত: ১১:৪৮ পিএম, ২৫ মে ২০২২

অডিও শুনুন

দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলায় চুক্তিবদ্ধ কৃষক পর্যায়ে আমন ধানের বীজ বিতরণ করেছে প্রাণ এ্যাগ্রো বিজনেস লিমিটেড। কৃষিতে মানসম্মত ধান উৎপাদনের লক্ষ্যে এই কার্যক্রম পরিচালনা করছে প্রতিষ্ঠানটি।

বুধবার (২৫ মে) বিকেলে উপজেলার রাঙ্গামাটি এলাকার প্রাণ এ্যাগ্রোর কনফারেন্স রুমে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এই বীজ বিতরণ করা হয়।

এসময় এক হাজার চুক্তিবদ্ধ কৃষকের মাঝে এক হাজার ৫০ একর জমির জন্য ব্রি-ধান ৩৪, ব্রি-ধান ৪৯ ও স্বর্ণা-৫ জাতের ধানের বীজ বিতরণ করা হয়। পাশাপাশি চাষাবাদের জন্য কৃষকদের জিংক, বোরন, জীপসামসহ বালাই ও কীটনাশকও দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রাণ কোম্পানির কর্মকর্তারা জানান, কৃষকের জমি ও শ্রম এবং প্রাণ কোম্পানির মেধা ও খরচ এই দুয়ের সমন্বয়ে কৃষিতে মানসম্মত ধান উৎপাদনের লক্ষ্যে আগে থেকেই এই কার্যক্রম করে আসছি আমরা।

jagonews24

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মঞ্জুরুল হক। তিনি বলেন, প্রাণ ১৫০টি দেশে তাদের উৎপাদিত পণ্য রপ্তানি করছে। প্রাণ আমাদের গর্ব। প্রাণ কৃষিতে যেসব পদক্ষেপ নেবে, সেগুলোতে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কারিগরি সহায়তা দেবে।

‘চাল ও ভুট্টার জেলা দিনাজপুর। এই জেলার কৃষিকে এগিয়ে নিতে প্রাণ তাদের কারাখানা স্থাপন করেছে। কৃষিতে যে বাধা-বিপত্তি রয়েছে তা একমাত্র প্রাণই দূর করতে পারে। কৃষিতে যে সমৃদ্ধি এসেছে, সেখানে প্রাণ বটবৃক্ষের ভূমিকায় রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ধানের পাশাপাশি তেলের চাহিদা মেটাতে প্রাণ গ্রুপ সরিষা চাষেও কৃষকদের উৎসাহিত করবে বলে আমরা আশা করছি।

‘এবার বোরো মৌসুমে কাঁচা ও ভেজা ধান কিনে প্রাণ যদি পাশে না দাঁড়াতো, তবে এই অঞ্চলের কৃষক ধানের দাম পেতো না। বর্তমানে কৃষিপণ্য বিপণনে প্রাণ আইকন হিসেবে কাজ করছে। প্রাণের এই কার্যক্রম আরও ছড়িয়ে পড়ুক, আমরা এই প্রত্যাশাই করি।’

jagonews24

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রাণ এ্যাগ্রো লিমিটেডের জেনারেল ম্যানেজার জাকারিয়া হোসেন। তিনি বলেন, কৃষিকে নিয়েই প্রাণের পরিকল্পনা। জমি আপনাদের, মেধা আমাদের। আমরা বীজ ও সার দিচ্ছি। আপনারা ভালো ধান উৎপাদন করবেন। আমরা আপনাদের কারিগরি সহায়তা দেবো।

‘আপনাদের উৎপাদিত ধান ন্যায্যমূল্যে ক্রয় করবে প্রাণ। ধানের যেকোনো দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য প্রাণ আরও আধুনিক স্থাপনা নির্মাণে কাজ করছে। ঝড়-বৃষ্টিসহ যেকোনো ধরনের পরিস্থিতিতে প্রাণ আপনাদের উৎপাদিত ধান ক্রয় করবে। এই নিশ্চয়তা আমরা দিচ্ছি।’

‘প্রাণ দিনাজপুর জেলায় ধানের ৩২টি প্রজাতি, টমেটো, ভুট্টা ও সরিষার ওপর পরীক্ষা চালিয়ে সফলতা পেয়েছে। প্রয়োজনীয় জমি ও কৃষকের সঙ্গে চুক্তির কাজ চলছে। কৃষককে সার ও কীটনাশকের ওপর প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ করে তুলে অচিরেই এক জমিতে তিন ফসল ফলানোর কার্যক্রম শুরু করবে প্রাণ।’

তিনি আরও বলেন, অতিরিক্ত সার ও কীটনাশক ব্যবহারের কারণে দিনাজপুরের মাটিতে বিভিন্ন রকম জীবাণু পাওয়া যাচ্ছে। তাই সঠিক পরিমাণে সার ও কীটনাশকের ব্যবহার করে স্বল্প খরচে ফসল উৎপাদনের প্রশিক্ষণও প্রাণ দিয়ে থাকে। যাতে কৃষক থেকে শুরু করে কৃষকের সোনার মাটি ও দেশের মানুষ নিরাপদ খাদ্য খেতে পারে।

‘আমরা আপনাদের (কৃষক) জন্য নিশ্চয়তা দিতে পারি। আপনাদের উৎপাদন কার্যক্রম অর্থাৎ ফসল আবাদের জন্য আমাদের বিশেষজ্ঞরা মাঠে থাকবে। যখনই ডাকবেন তখনই তাদের পাবেন। আপনাদের ফসল কর্তনের জন্য অত্যাধুনিক মেশিন ক্রয় করছে প্রাণ।’

‘জৈব সার তৈরির জন্য আপনাদের গৃহপালিত গরুর গোবরও কিনবে প্রাণ। তবে আপনাদের সর্বদা সচ্ছ ও সৎ হতে হবে। একজন কৃষকও যদি আমাদের সঙ্গে প্রতারণার আশ্রয় নেন, তবে তার সঙ্গে আমাদের সব চুক্তি বাতিল হয়ে যাবে।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রুম্মান আক্তার ও কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা শাহিনুর ইসলাম। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন প্রাণ এ্যাগ্রো বিজনেস লিমিটেডের কৃষি কর্মকর্তা খায়রুল আলম ও কৃষক প্রতিনিধি মোয়াজ্জেম হোসেন প্রমুখ।

এমদাদুল হক মিলন/এমপি

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]