রাস্তা সংস্কারের ইট বিক্রি করে দিলেন ইউপি সদস্য

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি মোংলা (বাগেরহাট)
প্রকাশিত: ১২:৪৬ পিএম, ২৯ মে ২০২২
রাস্তা সংস্কারের খোয়া যাওয়া ১৫০০ ইট মিললো পুকুরপাড়ে

বাগেরহাটের মোংলায় রাস্তা সংস্কারের ইট বিক্রির অভিযোগ উঠেছে শফিকুল ইসলাম নামে স্থানীয় এক ইউপি সদস্যের (মেম্বার) বিরুদ্ধে।

শনিবার (২৮ মে) রাত সাড়ে ৮টার দিকে হাসমত নামে স্থানীয় এক ব্যক্তির পুকুরপাড় থেকে বিক্রি হওয়া ১৫০০ ইট উদ্ধার করেন এলাকাবাসী।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার চাঁদপাই ইউনিয়নের উত্তর চাঁদপাই এলাকার ওয়াজেদ আলীর বাড়ি থেকে দীন মোহাম্মদ আলীর বাড়ি পর্যন্ত সড়কের সংস্কার কাজ চলছে। বাংলাদেশ লোকাল গভর্নেন্স সাপোর্ট প্রজেক্টের (এলজিএসপি) আওতায় রাস্তাটি নতুন করে সংস্কার হচ্ছে। কিন্তু সে রাস্তা করতে গিয়ে সড়কের পাশে রাখা নতুন ও পুরোনো ইট খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না।

খবর ছড়ায় সেই ইট ১ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম স্থানীয় বাসিন্দা হাসমতের কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন। শনিবার (২৮ মে) রাত সাড়ে ৮টার দিকে সেই ইট হাসমতের বাড়ির পুকুর থেকে উদ্ধার করেন এলাকাবাসী।

এলজিএসপির চাঁদপাই ইউনিয়ন ওয়ার্ড সাধারণ সম্পাদক মো. মতিয়ার রহমান মোড়ল জাগো নিউজকে বলেন, ‘এ প্রকল্পের আওতায় উত্তর চাঁদপাই এলাকায় তিনটি ইট সলিংয়ের রাস্তার কাজ চলমান রয়েছে। এরমধ্যে ওয়াজেদ আলীর বাড়ি থেকে দীন মোহাম্মদ আলীর বাড়ি পর্যন্ত ৫০০ ফুট ইট সলিংয়ের রাস্তা থেকে ১৫০০ ইট স্থানীয় মেম্বার শফিকুল বিক্রি করে দেন বলে জানতে পেরেছি। বিষয়টি প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে জানানো হয়েছে।’

ওই রাস্তার দেখভালের দায়িত্বে থাকা চাঁদপাই ইউনিয়নের সংরক্ষিত নারী সদস্য রাবেয়া বেগম জাগো নিউজকে বলেন, ‘চলমান তিনটি রাস্তা নির্মাণের মোট ২৫০০টি ইট খোয়া যায়। পরে এলাকাবাসীর খবরে শনিবার রাতে ওয়াজেদ আলীর বাড়ি থেকে দীন মোহাম্মদ আলীর বাড়ির রাস্তার পাশের বাসিন্দা হাসমতের বাড়ির পুকুর থেকে থেকে ১৫০০টি ইট উদ্ধার করি। ইটগুলোর বিষয়ে জানতে চাইলে মেম্বার শফিকুলের কাছ থেকে কেনার কথা জানায় হাসমত।’

mo-(2).jpg

ইট বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমি এলাকায় ছিলাম না। এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না।’

চাঁদপাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোল্লা তারিকুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, ‘ইট কোনোদিন হেঁটে হেঁটে পুকুরে যায়নি, অবশ্যই চুরি হয়েছে। জনগণের জন্য আমরা রাস্তা করে দিচ্ছি তাও যদি চুরি হয় তা দুঃখজনক। এ ঘটনার সঙ্গে যারাই জড়িত থাকুক ন্যায়সঙ্গত বিচার হওয়া উচিত।’

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কমলেশ মজুমদার জাগো নিউজকে বলেন, ‘এ সর্ম্পকে অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত কমিটি করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এসজে/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]