নওগাঁয় ট্রাকচাপায় ৪ শিক্ষকসহ নিহত ৫

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নওগাঁ
প্রকাশিত: ০৯:৪০ এএম, ২৪ জুন ২০২২

অডিও শুনুন

মাধ্যমিক পর্যায়ে বিষয়ভিত্তিক সৃজনশীল প্রশ্নপত্র প্রণয়ন ও উত্তরপত্র মূল্যায়ন বিষয়ে প্রশিক্ষণের জন্য অটোরিকশাযোগে নওগাঁ শহরের একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাচ্ছিলেন পাঁচ শিক্ষক। পথে নওগাঁ-রাজশাহী আঞ্চলিক মহাসড়কে ট্রাক-অটোরিকশা মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা গেছেন চার শিক্ষক।

নিহত অন্যজন হলেন অটোরিকশা চালক। এ ঘটনায় মুমূর্ষু অবস্থায় এক নারীকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়।

শুক্রবার (২৪ জুন) সকাল ৮টার দিকে নওগাঁ-রাজশাহী আঞ্চলিক মহাসড়কের নওগাঁ সদর উপজেলার বলিহার ইউনিয়নের বাবলাতলা মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তিদের মরদেহ উদ্ধার করে নওগাঁ সদর থানায় নেওয়া হয়েছে। তারা উপজেলার বিভিন্ন স্কুল ও মাদরাসার শিক্ষক ছিলেন।

নিহত ব্যক্তিরা হলেন নিয়ামতপুর উপজেলার আমকুড়া আশরাফুল উলুম দাখিল মাদরাসার সহকারী শিক্ষক (বাংলা) লেলিন সরকার (৫০), বেলগাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক (গণিত) মকবুল হোসেন (৪৫), পানিহারা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক (গণিত) দেলোয়ার হোসেন (৪২) ও গুজিশহর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক (বিজ্ঞান) জান্নাতুন ফেরদৌস (৪০) এবং অটোরিকশা চালক উপজেলার ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের সেলিম (৪৫)।

আহতরা হলেন কড়িদহ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক (বিজ্ঞান) নুরজাহান বেগম (৩৮)। অটোরিকশা চালক ও শিক্ষকদের সবার বাড়ি নিয়ামতপুর উপজেলায়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও নিহত ব্যক্তিদের স্বজনরা জানান, জেলার নিয়ামতপুর উপজেলা থেকে একটি অটোরিকশাযোগে দুই নারী শিক্ষকসহ পাঁচজন শিক্ষক নওগাঁ নামাজগড় গাউছুল আজম কামিল মাদরাসায় প্রশিক্ষণের জন্য যাচ্ছিলেন। সকাল ৮টার দিকে একটি মাটিবাহী ট্রাক্টর নওগাঁ-রাজশাহী আঞ্চলিক মহাসড়কের বাবলাতলা মোড়ে ওঠার চেষ্টা করছিল।

এ সময় নওগাঁ থেকে পশুখাদ্য (ফিড) বোঝাই একটি ট্রাক রাজশাহীর দিকে যাওয়ার সময় ওই ট্রাক্টরকে পাশ কাটছিল। এদিকে ট্রাক্টরটি মহাসড়কে উঠতে দেখে অটোরিকশাটি তার ডান পাশে চাপিয়ে দেয়। এতে ঘটে বিপত্তি।

দ্রুতগতির ট্রাকটি অটোরিকশাটিকে চাপা দিয়ে টেনে নিয়ে রাস্তার পাশে পুকুরের পানিতে উল্টে পড়ে যায়। এতে অটোরিকশার যাত্রী পাঁচ শিক্ষকের মধ্যে চারজন এবং অটোরিকশা চালকসহ পাঁচজন ঘটনাস্থলেই মারা যান। এ সময় নুরজাহান বেগম নামের এক নারী শিক্ষক ট্রাকের ধাক্কায় ছিটকে রাস্তায় পড়ে গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠান। পরে তাকে রামেকে নেওয়া হয়। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।

সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে নওগাঁ ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট। তারা প্রায় দুই ঘণ্টার চেষ্টায় মরদেহ উদ্ধার করেন। এ সময় আঞ্চলিক মহাসড়কের দুই পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চালক আব্দুল আজিজ ও আতাউর রহমান বলেন, তারা প্রতিদিনের মতো বাবলাতলা মোড়ে যাত্রীদের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এ সময় দ্রুতগতির একটি ট্রাক অটোরিকশাকে চাপা দিয়ে পুকুরে পড়ে যায়।

তারা আরও বলেন, বেশ কিছুদিন ধরে বিভিন্ন এলাকা থেকে ট্রাক্টর দিয়ে মাটি বহনের কাজ করা হচ্ছে। ট্রাক্টরটি বাবলাতলা মোড়ের পাশের রাস্তা থেকে মহাসড়কে ওঠার সময় এ মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটে। এখানে মাঝেমধ্যেই দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনা এড়াতে জরুরিভিত্তিতে সেখানে একটা স্পিড ব্রেকার নির্মাণের দাবি জানান তারা।

নিহত শিক্ষক দেলোয়ার হোসেনের ভাই শহিদুল ইসলাম বলেন, ‌‘ভাইসহ কয়েকজন শিক্ষক নিয়ামতপুর থেকে অটোরিকশাযোগে নওগাঁ শহরে প্রশিক্ষণের জন্য আসছিলেন। পথে ট্রাকের চাপায় ভাইসহ পাঁচজন মারা যান। সংবাদে পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে দেখি মরদেহগুলো থানায় নিয়ে গেছে।’

নওগাঁ জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা লুৎফর রহমান বলেন, শুক্রবার থেকে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত (৬ দিন) নওগাঁ নামাজগড় গাউছুল আজম কামিল মাদরাসায় বিষয়ভিত্তিক সৃজনশীল প্রশ্নপত্র প্রণয়ন ও উত্তরপত্র মূল্যায়ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ হওয়ার কথা ছিল। ওই প্রশিক্ষণে অংশ নিতে জেলার বিভিন্ন উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষকরা আসছিলেন। কিন্তু নিয়ামতপুর উপজেলার কয়েকজন শিক্ষক নওগাঁ শহরের আসার পথে দুর্ঘটনায় মারা যান। বিষয়টি আমাদের জন্য খুবই দুঃখজনক।

নওগাঁ ফায়ার সার্ভিস ইউনিট উপ-পরিচালক মাহমুদুল হাসান জানান, দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া অটোরিকশাটির বিভিন্ন অংশ পৃথক পৃথকভাবে কেটে মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে নওগাঁ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে।

তিনি আরও জানান, ঘটনার পর ট্রাকচালক পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

আব্বাস আলী/এসজে/এসআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]