পাবনা জেলা স্কুলের দুই ছাত্রকে অপহরণচেষ্টা, যুবক আটক

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি পাবনা
প্রকাশিত: ০৪:২৭ পিএম, ২৮ জুন ২০২২

দিনদুপুরে পাবনা জেলা স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির দুই ছাত্রকে অপহরণের চেষ্টা করেছে দুর্বৃত্তরা। তবে স্থানীয়দের বাধার মুখে সে চেষ্টা ব্যর্থ হয়। এসময় জনতা অপহরণকারী চক্রের এক সদস্যকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) দুপুর পৌনে ১২টার দিকে পৌর সদরে পাবনা জেলা স্কুলের অদূরে রায়বাহাদুর গেটের কাছে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, অপহরণকারী দলের তিন সদস্যের মধ্যে আটক ব্যক্তির নাম জিহাদ (২৬)। তিনি পাবনা সদর উপজেলার জহিরপুর গ্রামের আ. মজিদের ছেলে। তিনি তার অপর দুই সহযোগীর নাম-পরিচয় জানিয়েছেন। তবে পুলিশ তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম প্রকাশ করেনি। তারা পেশায় রংমিস্ত্রী বলে জানিয়েছেন।

ঘটনাস্থলের পাশে থাকা এক অভিভাবক নাম প্রকাশ না করে জানান, তিনি তার শিশুকে নিয়ে জেলা স্কুলে এসেছিলেন। ঘটনার সময় জনগণের হৈচৈ শুনে ও জটলা দেখে কাছে যান। এসময় পুলিশ খবর পেয়ে জনতার হাতে আটক অপহরণকারী দলের একজনকে নিয়ে চলে যায়।

পাবনা জেলা স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক আ. রাজ্জাক ওই দুই ছাত্রের বরাত দিয়ে বলেন, শিশুদের এক শিফটের ছুটি শেষে তারা বাড়ি যাচ্ছিল। তারা স্কুলের অদূরে রায় বাহাদুর গেটের কাছে পৌঁছানোর পর তিন যুবক তাদের ধরে মোটরসাইকেলে তুলে নেওয়ার চেষ্টা করে। এসময় তারা শিশুদের বলেন, ‘তোদের বাবারা মাদক খায়। আমরা তাদের কাছে টাকা পাই। তোরা আমাদের সাথে চল, তাহলে তোদের বাবারা টাকা দিয়ে দেবে।’ এসময় দুই শিশু চিৎকার শুরু করলে পাশে থাকা দোকানের কর্মচারীরা এসে অপহরণকারীদের ঘিরে ধরার চেষ্টা করলে দুজন মোটরসাইকেল নিয়ে দ্রুত পালিয়ে যান। কিন্তু একজন জনতার হাতে ধরা পড়েন।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে জেলা স্কুলের অন্যান্য ছাত্র-শিক্ষক ও পাবনা সদর থানার পুলিশ সদস্যরা হাজির হন। পরে পুলিশ ওই দুই ছাত্রকে শিক্ষকদের জিম্মায় দিয়ে অপহরণকারী দলের সদস্যকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

ঘটনাস্থলে যাওয়া পুলিশের উপ- পরিদর্শক (এসআই) ডেভিড হিমাদ্রি বলেন, আমরা জনতার কাছ থেকে এক অপহরণকারীকে আটক করে থানায় নিয়ে এসেছি। আটক ওই যুবক পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে, তারা দলে তিনজন ছিলেন। তারা পেশায় রংমিস্ত্রী বলে দাবি করেছেন। তাদের উদ্দেশ্য ছিল শিশুদের আটক করে অভিভাবকের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায় করা। আটক অপহরণকারী তার দুই সহযোগীর নাম পুলিশকে জানিয়েছে।

পাবনা সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম বলেন, এ ঘটনায় পুলিশ আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে। আটক যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তারা দেওয়া তথ্য যাচাই করে দেখা হচ্ছে।

আমিন ইসলাম জুয়েল/এমআরআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]